অবশেষে মাস্ক পরলেন ট্রাম্প, তুললেন ছবি!

মহামারী করোনায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত আমেরিকা। অথচ দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই ভাইরাসকে শুরুতে গুরুত্ব দিতে চাননি। করোনাভাইরাসকে সাধারণ ফ্লু বলে উল্লেখ করা ডোনাল্ড ট্রাম্প মাস্ক ও গ্লাভস পড়ার বিপক্ষে ছিলেন।

সমালোচনার মুখে অবশেষে সেই অবস্থান থেকে সরে আসতে হল ট্রাম্পকে। শুক্রবার স্কাই নিউজের প্রকাশিত এক ভিডিওতে তাকে নেভি ব্লু রংয়ের মাস্ক পরিহিত অবস্থায় দেখা যায়।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন-এর প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, প্রথমে মাস্ক ব্যবহারে অস্বীকৃতি জানালেও পরে তিনি তা পরেছেন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমাতে সব নাগরিককে মাস্ক পরার নির্দেশ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য বিভাগ। হোয়াইট হাউসের সব কর্মীকেও মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশনা দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তবে নিজে মাস্ক পরতে অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার মিশিগানে গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফোর্ডের একটি কারখানা পরিদর্শনের সময় তাকে মাস্ক পরিহিত অবস্থায় দেখা গেছে।

গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কারখানাটি পরিদর্শনের সময় মাস্ক পরতে ট্রাম্প অস্বীকৃতি জানিয়েছেন বলে অভিযোগ ওঠার পর তাকে ‘বেপরোয়া শিশু’ আখ্যা দেন মিশিগানের অ্যাটর্নি জেনারেল।

এর আগে কারখানা পরিদর্শনের সময় মাস্ক পরিহিত ফোর্ড কর্মকর্তাদের পাশে নিয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন, কিছুক্ষণ আগে মাস্ক পরলেও তা খুলে ফেলেছেন।

তিনি বলেন, ‘আগে পরেছিলাম। পেছনের দিকে থাকার সময় পরেছিলাম। সংবাদমাধ্যমকে তা দেখিয়ে বিনোদনের সুযোগ করে দিতে চাইনি।’

কারখানা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ট্রাম্পের হাতে একটি মাস্ক দেখা যায়। জানান, কারখানার ভেতর মাস্কটি পরেছিলেন তিনি। কিন্তু নিজের মাস্ক পরিহিত ছবি নিয়ে সংবাদমাধ্যম মজা করুক এই সুযোগ দেননি বলে জানান ট্রাম্প।

ফিলিস্তিনের হাতে নয়া ক্ষেপণাস্ত্র, আতঙ্কে ইহুদীবাদি ইসরাইল

বিশ্ব কুদস দিবসে নয়া ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস। ফিলিস্তিনের তথ্য কেন্দ্র জানিয়েছে, গতকাল শুক্রবার বিশ্ব কুদস দিবস উপলক্ষে একাধিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে।

গাজা থেকে সাগরে এসব ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। ফিলিস্তিনি সূত্রগুলো বলছে, হামাসের সামরিক শাখা ইয়াযদ্দিন কাসসাম ব্রিগেডের প্রতিরক্ষা শক্তি বাড়ানোর অংশ হিসেবে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালানো হয়েছে। এর মাধ্যমে হামাস ইসরাইলি আগ্রাসন মোকাবেলায় নিজেদের সামরিক প্রস্তুতির বার্তাও দিতে চেয়েছে।

হামাস এমন সময় নয়া ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালালো যখন ২০০৬ সাল থেকে গাজার ওপর সর্বাত্মক অবরোধ আরোপ করে রেখেছে দখলদার ইসরাইল।

এদিকে, হামাসের মুখপাত্র হাজেম কাসেম ফিলিস্তিনিদেরকে সব ধরণের বিভেদ ভুলে ঐক্য জোরদারের আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, গোটা মুসলিম উম্মাহর মধ্যে প্রতিরোধ আন্দোলন বিস্তৃত করতে হবে, কারণ ইহুদিবাদ বিশ্বের সব মুসলমানকে টার্গেট করেছে

আরো পড়ুন-গাড়ির যন্ত্রাংশ দিয়ে করোনার ভেন্টিলেটর বানিয়ে অবশেষে সফল হলেন আফগান মেয়েরা

২০১৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত একটি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় বিশেষ পুরস্কার জিতে বিশ্ববাসীর নজর কেড়েছিল আফগানিস্তানের একদল কিশোরী। সেই মেয়েরাই এবার বাস্তবতার সঙ্গে লড়ে সাফল্য দেখাল।

করোনায় আক্রান্ত দেশকে ভেন্টিলেটর উপহার দিয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। মে মাসের শেষের দিকে বাজারে আসলে এ ভেন্টিলেটর অনেক কম দামে পাওয়া যাবে।

যুদ্ধ বিধ্বস্ত আফগানিস্তানের প্রায় ৪ কোটি মানুষের জন্য আছে মাত্র ৪০০ ভেন্টিলেটর। যা প্রয়োজনের তুলনায় অতি নগন্য। অথচ দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত ইতিমধ্যে ৭ হাজার ৬৫০ জন ছাড়িয়ে গেছে।

মৃত্যু হয়েছে ১৭৮ জনের। দেশটির স্বাস্থ্যসেবা অত্যন্ত ভঙ্গুর হওয়ায় কর্তৃপক্ষ আশঙ্কা করছে পরিস্থিতির আরো অবনতি ঘটবে। ভেন্টিলেটর তৈরি করা দলটির নাম ‘আফগান ড্রিয়েমার্স’। তাদের অন্যতম সদস্য ১৭ বছরের নাহিদ রাহিমি বার্তা সংস্থা বিবিসিকে বলেন, ‘আমরা যদি আমাদের চেষ্টার মাধ্যমে অন্তত একটি জীবনও রক্ষা করতে পারি তবে সেটাও অনেক গুরুত্বপূ্র্ণ।

এ দলটির সবার বয়স ১৪ থেকে ১৭ বছর বয়সে। তারা যে ভেন্টিলেটর তৈরি করছে তাতে ব্যবহার করা হয়েছে পুরনো টয়োটা করোলা গাড়ির মটর এবং হোন্ডা মোটরসাইকেলের চেইন ড্রাইভ।

তারা বলছে, শ্বাস-প্রশ্বাস জনিত সমস্যায় থাকা রোগীদের সাময়িক স্বস্তি দেবে তাদের এই ভেন্টিলেটর। যতক্ষণ ভালো মানের একটি পাওয়া না যায়। দল নেতা সুমাইয়া ফারুকি বলেন, ‘আমাদের চিকিৎসক ও নার্সরা এ সময়ে দেশের হিরো। তাদের সহযোগিতায় কিছু করতে পেরে গর্ব অনুভব করছি।’

বর্তমানে বিশ্বে বাজারে ভেন্টিলেটরের মারাত্বক সংকট রয়েছে। আর যা বিক্রি হচ্ছে তার দাম পড়ছে ৩০ হাজার থেকে ৫০ হাজার ডলার। আর আফগান এ মেয়েরা যে ভেন্টিলেটর তৈরি করেছে তার দাম পড়বে ৬০০ ডলারের কম।

দলটির প্রতিষ্ঠাতা রয়া মাহবুব, ‍যিনি টাইম ম্যাগাজিনের ১০০ প্রভাবশালী উদ্যোক্তার একজন হয়েছেন। তিনি বলেন, ‘কাজ ৭০ শতাংশ শেষ হয়ে গেছে। হাসপাতালে প্রাথমিক পরীক্ষায় সফলতাও এসেছে। মে মাসের শেষ দিকে এটি বাজারে আসবে।’
সূত্র: বিবিসি