জীবনের শেষ পর্যন্ত মজলুম ফিলিস্তিনীদের পাশে থাকবো: ঘোষণা

সামরিক শক্তিতে মুসলিম বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী দেশ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান বলেছেন,তার দেশ ফিলিস্তিনীদের পাশে রয়েছে, এবং কোনো চাপের মুখে তুরস্ক ফিলিস্তিন সমস্যার ব্যাপারে নিজেদের অবস্থান থেকে সরে আসবে না।
ফিলিস্তিনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা জানায়,

ইসরাইলি পার্লামেন্টের আরব সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে প্রেসিডেন্ট এরদোগান এসব কথা বলেন। মুসলিম বিশ্বের প্রভাবশালী এ নেতা বলেন, আঙ্কারা সবসময় ফিলিস্তিনি মাজলুমদের সহায়তা অব্যাহত রাখবে। ফিলিস্তিনিদের পাশে থেকে আমরা কখনো সরে যাবো না, ফিলিস্তিনিদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে।

প্রেসিডেন্ট এরদোগান আরও বলেন, ইসরাইলি দখল থেকে ফিলিস্তিনকে মুক্ত করা, ফিলিস্তিনি জনগণের স্বাধীকার প্রতিষ্ঠা আমাদের অন্যতম অঙ্গীকার। এ বিষয়ে আমরা কখনো নমমীয় হইনি। ফিলিস্তিনে ইসরাইলি দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে বিশ্বের প্রতিটি সংস্থাকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান এরদোগান।

বৈঠকে ফিলিস্তিন বিষয়ে জোরালো ভূমিকা রাখায় ইসরাইলি পার্লামেন্টের আরব সদস্যরা তুর্কি প্রেসিডেন্টকে অভিনন্দন জানান। প্রেসিডেন্ট এরদোগানও ইসরাইলি দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকায় তাদের ধন্যবাদ জানান।

ভারতে দুই সন্তানের বেশি হলে সরকারি সুবিধা দেয়া হবে!

ক্রমানুপাতে জনসংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে। এই সমস্যা কাটিয়ে উঠতে দুইয়ের বেশি সন্তান নেয়ার পরামর্শ দেয়ার পাশাপাশি পুরস্কারের ঘোষণা দিয়েছে ভারতের অন্ধ্র প্রদেশ সরকার। ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে ৬১ হাজার ৮৫৫ বর্গমাইলের অন্ধ্র প্রদেশের জনসংখ্যা ৪ কোটি ৯৩ লাখ ৮৬ হাজার ৭৯৯ জন।

অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর মতে গত ১০ বছরে প্রদেশের জনসংখ্যা ১.৬ শতাংশ কমেছে। এখনই জনসংখ্যায় তরুণদের অনুপাত বাড়াতে না পারলে আগামী দুই দশকে ‘বুড়ো’দের রাজ্যে পরিণত হবে অন্ধ্রপ্রদেশ। কমবে কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যাও। সেই সংখ্যা আরও বাড়িয়ে রাজ্যে তরুণ প্রজন্মের সংখ্যা বাড়ানোর আশু প্রয়োজন বলে দাবি করেছেন তিনি।

রাজ্যের জনসংখ্যা ক্রমাগত কমতে থাকায় আশঙ্কা প্রকাশ করলেন অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডু। সেই সমস্যা কাটিয়ে তুলতে এবার নতুন পদক্ষেপ নিচ্ছে তার সরকার। জনসংখ্যা বাড়াতে তরুণ দম্পতিদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

সন্তান জন্ম দেয়ার উৎসাহ দিয়ে দুইয়ের বেশি সন্তান থাকলে দম্পতিদের জন্য বিশেষ সরকারি সুযোগ-সুবিধার ঘোষণাও করেছে তার সরকার। উল্লেখ্য, নিয়মানুসারে দুইয়ের বেশি সন্তান থাকলে ভোটে দাঁড়ানোর সুযোগ নেই অন্ধ্রপ্রদেশের নাগরিকদের। কিন্তু আসন্ন পৌরসভার ভোটে সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে দেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।