করোনাভাইরাস: ঈদুল আজহার দিনেও বন্ধ থাকবে কাবা

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে চলতি বছরের হজ প্রস্তুতিতে মুসল্লিদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পাবে বলে জানিয়েছে সৌদি কর্মকর্তারা। এছাড়াও মক্কার গ্র্যান্ড মসজিদে হাজীদের প্রবেশ ও প্রস্থান নিয়ন্ত্রণে নতুন ব্যবস্থা করা হয়েছে।

মক্কার গ্র্যান্ড মসজিদের নিরাপত্তার জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত বাহিনীর কমান্ডার মঙ্গলবার বলেন, করোনা সংক্রমণ থেকে মুসল্লিদের সুরক্ষা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। বর্তমান এই পরিস্থিতিতে আমরা এই বছর স্বাস্থ্যের দিকটিতে বেশি গুরুত্ব দিয়েছি। আগামী ধাপে বাকিগুলো কার্যকর করা হবে।

মেজর জেনারেল মুহাম্মদ আল আহমাদী বলেন, কোভিড -১৯’র বিরুদ্ধে সামাজিক দূরত্ব ও কার্যকর সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে গ্র্যান্ড মসজিদে হাজীদের প্রবেশ ও প্রস্থান নিয়ন্ত্রণে নতুন ব্যবস্থা করা হয়েছে। এতোদিন পবিত্র কাবা শরীফের আশেপাশে এবং সাফা ও মারওয়ার পাহাড়ের মধ্যে হাঁটার জন্য নির্ধারিত পথগুলোতে প্রবেশ করার অনুমতি ছিল। গ্র্যান্ড মসজিদের ভিতরে কেবলমাত্র সরকারি অনুমতিপ্রাপ্তরাই প্রবেশ করতে পারতেন।

আল আহমাদী বলেন, কিন্তু ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে পবিত্র আরাফার দিন ও ঈদুল আজহার দিনেও বন্ধ থাকবে গ্র্যান্ড মসজিদ। এছাড়াও গ্র্যান্ড মসজিদের বাইরের সংলগ্ন এলাকায় নামাজ না আদায়ের সিদ্ধান্ত এখনো বহাল আছে। অনুমতি ছাড়াই মক্কা শহরে প্রবেশে বাধা দিতে বিভিন্ন স্থান ২৪ ঘণ্টা সুরক্ষা বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে থাকবে। সূত্র: আরব নিউজ

বাড়ছে উত্তেজনা, চীনের বিপক্ষে রণকৌশল সাজাচ্ছে ভারত!

উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে ভারত-চীনের সম্পর্ক। লাদাখ সীমান্তে গলওয়ান উপত্যকায় চীনা সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষের পর সতর্ক অবস্থানে আছে দুই দেশের সেনারা। এমন পরিস্থিতিতে বেইজিংকে সামলাতে রাফায়েলসহ একাধিক যুদ্ধবিমান ও ট্যাংক মোতায়েন করেছে নয়াদিল্লি। পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে আজ গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসছে ভারতীয় বিমান বাহিনী।

পূর্ব লাদাখের পরিস্থিতি পর্যালোচনা, মোতায়েন করা রাফায়েলের সংখ্যাবৃদ্ধির গুরুত্ব, চীনা সেনার অবস্থানসহ একাধিক রণকৌশল সাজিয়ে নিতে এই বৈঠক বলে জানা গেছে।

তবে শুধু লাদাখ নয়, দেশের উত্তর ও উত্তর পূর্ব প্রান্ত জুড়ে চীনের সীমান্তেই নিজেদের শক্তি বৃদ্ধি করতে চাইছে ভারতের বিমান বাহিনী।
অরুণাচল প্রদেশ, সিকিম ও উত্তরাখণ্ডের চীন সীমান্তের পরিস্থিতিও এই বৈঠকে খতিয়ে দেখা হবে। প্রথম পর্যায়ের রাফায়েল মোতায়েন করা হয়েছে লাদাখ সেক্টরে।

সেক্ষেত্রে, আরও রাফায়েল ফাইটার জেট মোতায়েন করা হবে কীনা, তা দেখা হবে। জানা গেছে, জুলাই মাসের শেষের দিকে ভারতের বিমান বাহিনীর হাতে এসে পৌঁছবে কমপক্ষে ৩৬টি রাফায়েল ফাইটার জেট।
তিনদিনের বৈঠকের মূল অ্যাজেন্ডা ভারতের বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার পর্যালোচনা। বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন এয়ার চিফ মার্শাল আর কে এস ভাদোরিয়া। দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংও উপস্থিত থাকতে পারেন এই বৈঠকে।