পাকিস্তানের উপকূলীয় নিরাপত্তা এবং বাণিজ্যিক ফ্রন্টের সুরক্ষা দেবে তুরস্কের নির্মিত করভেট

পাকিস্তান নৌবাহিনীর জন্য তুরস্কের ন্যাশনাল শিপ (মিলজেম) প্রকল্পের তৈরি দুটো করভেট জাহাজের জন্য ইস্পাত কাটার যে উদ্বোধন হয়েছে, সেটা সংবাদে বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে। এই নৌ প্ল্যাটফর্মে শুধু নৌ নিরাপত্তার উপাদানই নেই, বরং সাগর, উপকূল এবং আকাশ সুরক্ষার জন্যও সমন্বিত প্ল্যাটফর্ম রয়েছে।

এটা অর্জনের মাধ্যমে দক্ষিণ এশিয়ার দেশটির নৌবাহিনীতে শক্তি বাড়বে এবং এটা উপকূলীয়, এবং বাণিজ্যিক সমুদ্র পথের নিরাপত্তা রক্ষার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে, যেটা দেশের অর্থনীতির জন্য অত্যন্ত জরুরি।

তুরস্কের নৌবাহিনীর করভেটের আদলে তৈরি চারটি আদা-শ্রেণীর জাহাজ পাকিস্তানের কাছে সম্প্রতি বিক্রি করেছে তুরস্ক, যেটা তাদের প্রতিরক্ষা শিল্পের জন্য বড় ধরণের অর্জন হিসেবে দেখা হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সহযোগিতার ক্ষেত্রে এই জাহাজগুলো পাকিস্তানের হাতকে আরও শক্তিশালী করবে। এই অত্যাধুনিক করভেটগুলোর মাধ্যমে পুরনো জাহাজগুলো বদলে ফেলার মাধ্যমে পাকিস্তান তাদের নৌ রুটগুলোকে আরও ভালোভাবে সুরক্ষা করতে পারবে, এবং একই সাথে তাদের কৌশলগত অংশীদারিত্বও আরও জোরদার হবে।

ডেইলি সাবাহের সাথে সাম্প্রতিক এক সাক্ষাতকারে নৌ সুরক্ষা ও নিরাপত্তা কনসালটেন্ট অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন আল্প কিরিক্কানাত বলেছেন, এই করভেটগুলো পাকিস্তান নৌবাহিনীকে বিভিন্ন সুবিধা দেবে।

বিশেষ করে কৌশলগত ও বাণিজ্যিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ বন্দরগুলোতে – নির্মানাধীন গোয়াদর ও করাচিতে এগুলো ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে। পাশাপাশি জল, স্থল ও আকাশে সম্ভাব্য হুমকি মোকাবেলার ক্ষেত্রেও এগুলো ভূমিকা রাখবে।

আরও পড়ুনঃ করভেট নির্মাণ: পাকিস্তানের সঙ্গে তুরস্কের ডিফেন্স টেকনোলজি ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের চুক্তি

২০১৬ সালের ডিসেম্বরে পাকিস্তান টাস্ক ফোর্স-৮৮ (টিএফ-৮৮) গঠন করে, যেখানে চীন অর্থায়ন করেছে বলে জানা যায়। গোয়াদর বন্দর এবং এটার সাথে সংলগ্ন সমুদ্র পথের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য এই টাস্ক ফোর্স গঠন করা হয়েছে।

গোয়াদর বন্দরটি সিপিইসি’র গুরুত্বপূর্ণ অনুসঙ্গ। তেল ও নৌ বাণিজ্যের আন্তর্জাতিক নৌ রুটের গুরুত্বপূর্ণ অংশে এটা দাঁড়িয়ে আছে। কারণ এটার মাধ্যমে দক্ষিণ এশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্য যুক্ত হয়েছে।

কিরিক্কানাত বলেন, “টাস্ক ফোর্স-৮৮ এর অনেকগুলো নৌ উপাদান রয়েছে। তিনি ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন যে, পাকিস্তান ধারাবাহিকভাবে যে করভেটগুলো কিনছে, এগুলোও টাস্ক ফোর্স-৮৮ এর সাথে যুক্ত হতে পারে”।

আর কোন চাহিদা?

যদিও তুরস্কের নৌবাহিনীর আদা-শ্রেণীর করভেট জাহাজের দিকে মনোযোগ দিয়েছে পাকিস্তানের নৌবাহিনী, তবে দেশের চারপাশের পরিস্থিতি বিবেচনা করে সামরিক ক্রয়ে আরও বৈচিত্র আনতে পারে পাকিস্তান।

দ্বিতীয় জাহাজের জন্য ইস্পাত কাটা অনুষ্ঠানের পর প্রতিনিধিত্বকারী যে ছবিটি সম্প্রচার করা হয়েছে, সেখানে ১৬ সেলের একটি ভার্টিক্যাল লঞ্চিং সিস্টেমের (ভিএলএস) ছবি রয়েছে। এই ভিএলএস তুরস্কের কোন আদা-শ্রেণীর করভেটে নেই।

কিরিক্কানাত বলেছেন যে, জাহাজে কি ধরণের অস্ত্র সিস্টেম থাকবে, এটা বলার যদিও সময় আসেনি এখনও। নির্মাণকালীন সময়ে সেটার পরিবর্তনও হতে পারে। পাকিস্তানের জন্য যদি এগুলোর পরিকল্পনা থাকে, তার অর্থ হলো আকাশপথের ক্রমবর্ধমান হুমকির মোকাবেলার জন্যই পাকিস্তান আদা-শ্রেণীর করভেটে এগুলো সংযোজন করতে বলেছে।

কিরিক্কানাত বলেন, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে যে সব ঘটনা ঘটছে, সেগুলোর কথা মাথায় রেখেই সম্ভবত ভিএলএসসহ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমের জন্য অতিরিক্ত চাহিদা দেয়া হয়েছে। পাকিস্তান সম্ভবত মনে করছে সাগরে তারা এগুলোর প্রয়োজনীয়তা অনুভব করতে পারে।

মুসলমানদের পরিচয় বদলে দিতে কাশ্মীরে ২৫ হাজার ভারতীয়কে নাগরিকত্ব দিচ্ছে মোদী সরকার

প্রায় ২৫ হাজার ভারতীয়কে ভারত শাসিত কাশ্মীরে নাগরিকত্ব সনদ দিয়েছে দিয়েছে দেশটির সরকার। এর মাধ্যমে বিজেপি সরকার কাশ্মীরে জনসংখ্যার বিন্যাস পরিবর্তনের চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেছে কাশ্মীরের রাজনৈতিক দলগুলো।

এই নাগরিকত্ব সনদের ফলে এখন থেকে সেখানে অ-কাশ্মীরিরা স্থায়ী বসতি গড়তে পারবে এবং সরকারি চাকরির সুযোগ পাবে।
ভারতীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, সরকারের এই পদক্ষেপে ক্ষোভে ফেটে পড়েছে কাশ্মীরের দুই প্রধান রাজনৈতিক দল ন্যাশনাল কনফারেন্স ও পিপলস ডেমোক্র্যাটিক পার্টি।

তাদের অভিযোগ, নতুন এই আইনকে হাতিয়ার করে দেশের একমাত্র মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্যের জনসংখ্যার বিন্যাস বদলানোর ছক করছে বিজেপি সরকার।

২০১৯ সালের ৫ আগস্ট ৩৫এ ধারা বাতিল করে কাশ্মীরের রাজ্য ও স্বায়ত্তশাসনের মর্যাদা কেড়ে নেয় বিজেপি সরকার। বাতিল করা হয় কাশ্মীরের নাগরিকত্ব সুরক্ষা আইনও। এর আগে জম্মু-কাশ্মীরের নিজস্ব সংবিধান ছিল। সেই সংবিধান অনুযায়ী, বাইরের রাজ্যের কেউ ভূস্বর্গের স্থায়ী নাগরিক হতে পারতেন না।

জমি, স্থাবর সম্পত্তির মালিকও হতে পারতেন না।
তবে এখন থেকে কিছু শর্ত পূরণ করে ভারতীয়রা কাশ্মীরের নাগরিকত্বের জন্য তহশিলদারের কাছে আবেদন করতে পারবেন। শর্ত পূরণ করলে যে কাউকে এই সনদ দিতে কোনো কর্মকর্তা অকারণে দেরি করলে তাকে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা করা হবে।

আরো পড়ুন-প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন বাইডেনই: ট্রাম্প

সদ্য হওয়া তিনটি জনমত সমীক্ষার ইঙ্গিত, তাঁকে বেশ খানিকটা পিছনে ফেলে দিয়েছেন তাঁর একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন। একটি খবরের চ্যানেলকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজেও প্রায় বলেই ফেললেন যে, বাইডেনই প্রেসিডেন্ট হতে চলেছেন, কারণ দেশের কিছু মানুষ তাঁকে ভালবাসেন না।

সাক্ষাৎকারের শুরুটা হয়েছিল বাইডেনকে আক্রমণ করেই। অতিমারি মোকাবিলায় ট্রাম্প প্রশাসনের ব্যর্থতা এবং লকডাউনের জেরে আর্থিক মন্দা নিয়ে দেশের তাবড় সেলিব্রিটিরা পর্যন্ত মুখ খুলেছেন।

সেই সঙ্গে বর্ণবিদ্বেষ-বিরোধী আন্দোলনে ট্রাম্পের সেনা পাঠানোর হুমকিও ভাল চোখে নেননি অনেকেই। সাক্ষাৎকারটির ঠিক ২৪ ঘণ্টা আগে বাইডেনও প্রেসিডেন্টকে বিঁধে বলেছেন, ‘‘করোনাভাইরাস মোকাবিলায় ট্রাম্প শিশুদের মতো আচরণ করেছেন। মনে হচ্ছে ওঁকে ছাড়া আমাদের সকলের উপরেই প্রভাব ফেলেছে এই অতিমারি।’’

ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীর এই বক্তব্যেরই প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হয়েছিল ট্রাম্পের কাছে। যার জবাবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট প্রথমে বাইডেনের এক গুচ্ছ সমালোচনা করেন। তার পরেই বলেন, ‘‘একটা লোক ভাল করে কথা পর্যন্ত বলতে পারে না।

অথচ উনিই আপনাদের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হতে চলেছেন। কারণ এ দেশেরই কিছু মানুষ আমায় ভালবাসেন না হয়তো।’’ তার পরেই তাঁর সংযোজন, ‘‘আমি আমার কাজটাই করছি।’’

বেশ কিছু সমীক্ষা আবার এ-ও বলছে, আমেরিকায় বসবাসকারী ভারতীয় বংশোদ্ভূতদের মধ্যে বাড়ছে বর্তমান প্রেসিডেন্টের জনপ্রিয়তা। মিশিগান, ফ্লরিডা, টেক্সাস, পেনসিলভ্যানিয়া, ভার্জিনিয়ার মতো প্রদেশে ৫০ শতাংশেরও বেশি ভারতীয় বংশোদ্ভূত চাইছেন, ট্রাম্পই ফের প্রেসিডেন্টের গদিতে বসুন।

অথচ আমেরিকায় বসবাসকারী ভারতীয় বংশোদ্ভূতদের মধ্যে ডেমোক্র্যাটদেরই সমর্থন করারই প্রবণতা ছিল এত দিন। হোয়াইট হাউসের ডেপুটি প্রেস সচিব সারা ম্যাথিউস সাংবাদিকদের জানান, ভারতীয় বংশোদ্ভূতদের এমন সমর্থন পেয়ে প্রেসিডেন্ট অভিভূত। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, প্রথম থেকেই ভারতের সঙ্গে

সুসম্পর্ক গড়ে তোলায় জোর দেন ট্রাম্প। তাই নরেন্দ্র মোদী আমেরিকা সফরে এলে হাউডি মোদী ও ট্রাম্প ভারতে গেলে কেমছো ট্রাম্পের আয়োজন করা হয়েছে। সারা বলেছেন, ‘‘আমাদের অর্থনীতি, সংস্কৃতিতে ভারতীয়-মার্কিন নাগরিকদের অবদানকে প্রেসিডেন্ট গুরুত্ব দেন।’’

এ দিকে, মেক্সিকো সীমান্তে দেওয়াল তোলার জন্য মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতরের অর্থ খরচ করার অধিকার ট্রাম্প প্রশাসনের নেই বলে রায় দিয়েছে মার্কিন ফেডারেল আপিল আদালত।