পশ্চিম তীর থেকে ইহুদি বসতি সরানোর নির্দেশ!

ফিলিস্তিনিদের ব্যক্তি মালিকানাধীন জমি জবরদখল করে পশ্চিম তীরে যেসব ইহুদি বসতি গড়ে উঠেছে সেগুলো সরিয়ে ফেলার আদেশ দিয়েছে ইসরায়েলের সর্বোচ্চ আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার ক্ষতিগ্রস্ত ও বিক্ষুব্ধ ফিলিস্তিনিদের আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০১৮ সালে জেলা আদালতের দেওয়া রায়কে বাতিল করে দিয়ে নতুন এই রায় দেন দেশটির সুপ্রিম কোর্ট।

ফিলিস্তিনিরা পশ্চিম তীরকে তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের অংশ হিসেবেই চায়। ওখানে ত্রিশ লাখ ফিলিস্তিনি বাস করে।

তাদের মধ্যে বসতি গড়ে তুলেছে প্রায় সাড়ে ৪ লাখ ইসরায়েলি। ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বসতি স্থাপনের পক্ষে হলেও সম্প্রতি আমিরাতের সঙ্গে কূটনৈতিক স্থাপনের শর্তানুসারে আপাতত পশ্চিম তীরে বসতিস্থাপন স্থগিত করতে সম্মত হন।

জানা গেছে, জেলা আদালত যখন ফিলিস্তিনিদের জমির ওপর বসতিস্থাপনকারীদের আইনগত অধিকার দিয়েছিল, তখন তাদের এটা জানা ছিল না যে, মূল মানচিত্রে এসব জমি ফিলিস্তিনিদের হিসেবে দেখানো হয়েছে। জর্ডান উপত্যকায় একটি পাহাড়ের চূড়ায় ২০ বছর আগে বসতি স্থাপন করা ৪০টি পরিবার রয়েছে, যাদের বেশিরভাগই ফিলিস্তিনিদের মালিকানাধীন প্লটে বাস করে।

তাদের দাবি, তারা সেখানে বাস করার জন্য ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের অনুমোদন পেয়েছে। তবে সুপ্রিম কোর্ট বলেছে, ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ কাজটি অন্যায্যভাবে করেছে এবং তারা ফিলিস্তিনিদের ন্যায্য মালিকানাকে উপেক্ষা করেছে। বেশির ভাগ দেশ ১৯৬৭ সালের যুদ্ধে ইসরায়েলে দখল করা ভূমির ওপর ইসরায়েলিদের নতুন বসতি স্থাপনের বিরোধিতা করে। তবে ইসরায়েল ও যুক্তরাষ্ট্র বসতি স্থাপনকে বৈধ মনে করে। সূত্র: আল-জাজিরা

ইসরাইল থেকে আমিরাতে ফ্লাইট চালু সোমবার

ইসরাইলের সাথে সংযুক্ত আরব আমিরাতের চুক্তির অংশ হিসেবে আগামী সোমবার থেকে সর্বপ্রথম বাণিজ্যিকভাবে বিমান চলাচল শুরু হতে যাচ্ছে। ইসরাইলের এল আল এয়ার লাইন্স সর্বপ্রথম তেল আবিব থেকে আবু ধাবির উদ্দেশ্যে ফ্লাইটটি যাত্রা করবে বলে নিশ্চিত করেছে ইসরাইলি এয়ারপোর্ট কর্তৃপক্ষ।

ইসরাইলি এয়ারপোর্ট কর্তৃপক্ষের ওয়েবসাইটের দেয়া তথ্যমতে, তেল আবিবের বেন গুরিওন বিমানবন্দর থেকে আমিরাতের রাজধানী আবু ধাবিতে নির্ধারিত ফ্লাইটি যাবে।

এ ফ্লাইটে ইসরাইল ও যুক্তরাষ্ট্রে কর্মকর্তারা আরব আমিরাতের সাথে ইসরাইলের চুক্তির বিষয়ে আলোচনা করতে যাবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তবে রয়টার্স একটি বিমান চলাচল সূত্রে জানায়, ইসরাইলের এল আল ও ইসরায়ার দুটি বিমান সংস্থা এই ফ্লাইট পরিচালনার জন্য আবেদন জানিয়েছে।

অনলাইনে এই ফ্লাইটটি “এলওয়াই৯৭১” দেখাচ্ছে, যা সম্ভবত আরব আমিরাতের কান্ট্রি কোড যা ৯৭১।

ইসরাইল ও আরব আমিরাতের মধ্যে সরকারিভাবে বিমান যোগাযোগ নেই এবং এটাও নিশ্চিত নয় যে ফ্লাইটের সময় কমানোর জন্য বিমানটি সৌদি আরবের উপর দিয়ে যাবে কি না, যেহেতু ইসরাইলের সাথে সৌদি আরবের কোন চুক্তি হয়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের একটি সরকারি সূত্র নিশ্চিত করেছে যে ৩১ আগস্ট স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় প্রেসিডেন্ট ডোলান্ড ট্রাম্পের সিনিয়র উপদেষ্টা ও জামাতা জ্যারেড কুশনার এল আল ফ্লাইটে তেল আবিব থেকে যাত্রা শুরু করবেন।

ফ্লাইট রুট ও অবতরণের সঠিক সময় এখনো জানা যায়নি বলে নিশ্চিত করেছে মার্কিন সূত্র।

ইসরাইল ও আরব আমিরাত আনুষ্ঠানিক চুক্তির আগে দুই দেশ দূতাবাস স্থাপন, বাণিজ্য ও ভ্রমণ বিষয়ে আলোচনা শুরু করেছে। মিডল ইস্ট আই