আমেরিকা তর্জন-গর্জনই দেখাতে পারবে, পকৃত অর্থে দুর্বল: ইরান

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি বলেছেন, মার্কিন সরকার যেভাবে হুমকির ভাষায় কথা বলে তার প্রকৃত শক্তি ততটা নয়। ইরানের পশ্চিমাঞ্চলীয় কেরমানশাহ প্রদেশে আজ বুধবার এক অনুষ্ঠানে দেয়া ভাষণে প্রেসিডেন্ট রুহানি একথা বলেছেন।

প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, “আমরা এই অঞ্চল চিনি এবং ইরানি জনগণের শক্তি সম্পর্কে তাদের চেয়ে আমরাই বেশি জানি। মার্কিনিরা যা ধারণ করে তার চেয়ে ইরানি জনগণের ত্যাগ ও শক্তি অনেক বেশি।”

তিনি বলেন, “মার্কিন কর্মকর্তাদের বাগাড়ম্বরপূর্ণ হুমকির সঙ্গে তাদের প্রকৃত শক্তি মোটেই সঙ্গতিপূর্ণ নয়। এদের বক্তব্য সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। তাদের তর্জন-গর্জনের সঙ্গে শক্তির কোনো মিল নেই।”

ড. রুহানি আরো বলেন, মার্কিন নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ইরান তেল রপ্তানি অব্যাহত রাখবে। ইরান কারো সঙ্গে শত্রুতা করে না তবে কেউ ষড়যন্ত্র করলে তেহরান চুপচাপ বসে থাকবে না বলেও মন্তব্য করেন ড. হাসান রুহানি।

সুত্র: পার্সটুডে

আরো পড়ুন: এবার আইএসের টার্গেট মিয়ানমার!

মিয়ানমারের উত্তর রাখাইন আইএসের টার্গটে বলে জানিয়েছেন মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট অফিসের মুখপাত্র ইউ জো হতয়।

তিনি বলেন,মিয়ানমারের উত্তর রাখাইন আইএসের হুমকিতে রয়েছে।২০১২ সাল থেকে আইএস উত্তর রাখাইনকে টার্গেট করেছে। সিরিয়া ও ইরাকে পরাজিত হয়ে তারা এখন বিভিন্ন পয়েন্টে ঢোকার চেষ্টা করছে। উত্তর রাখাইন তার মধ্যে অন্যতম।বুধবার এ খবর মিয়ানমারের স্থানীয়গণমাধ্যম ইরাওয়াদ্দি।

হতয় বলেন,‘ইন্দোনেশিয়া আমাদের কয়েক বার সতর্ক করেছে।আইএস সংশ্লিষ্ট দেশে প্রবেশ করে এবং স্থানীয় উগ্রপন্থী গ্রুপের সঙ্গে মিলে তারা হামলা চালায়।

ইরাওয়াদ্দি তাদের এক প্রতিবেদনে জানায়,মালয়েশিয়ার পুলিশ প্রধান মোহাম্মাদ ফুজি হারুন জানিয়েছেন, আইএস দক্ষিণ ফিলিপাইন ও মিয়ানমারের উত্তর রাখাইন রাজ্যকে টার্গেট করেছে।

রাখাইন বিষয়ক বিশ্লেষক ইউ মং মং সোয়ে বলেছেন, ২০১৭ সালের সেনা অভিযানে বাংলাদেশে পালিয়ে যাওয়া যুবক শরণার্থীরা সময়ের ব্যবধানে বিদ্রোহী হয়ে উঠতে পারে, যাদের সমর্থন পেতে সহজ হবে আইএসের জন্য