জাতিসংঘ দফতরের সামনে শরীরে আগু’ন দিলেন এক কুর্দি

স্থানীয় সময় বুধবার সকাল ৮টার দিকে সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার বাইরে এক সিরীয় কুর্দি নিজের গায়ে আগু’ন ধরিয়ে আত্মহ’ত্যার চেষ্টা করেছে। জেনেভা পুলিশের মুখপাত্র সিলভাইন গুইলাউম-জেনটিল জানিয়েছেন, জার্মানির বাসিন্দা ৩১ বছরের ওই ব্যক্তি তার এ হ’ত্যাচেষ্টার কারণ ব্যাখ্যা করেননি।

তিনি বলেন, ‘আমরা তার কারণটি কল্পনা করতে পারি। তবে আমাদের কাছে সুদৃঢ় কোনো তথ্য নেই।’ প্রসঙ্গত, ৯ অক্টোবর উত্তর-পূর্ব সিরিয়ায় কুর্দিদের বি’রুদ্ধে অভিযানে নামে তুরস্ক। এর বি’রুদ্ধে কুর্দিরা বিক্ষোভ করে আসছে। অনেকেই উদভ্রা’ন্তের মতো ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

আফ্রিকায় প্রথম আজান হওয়া ঐতিহাসিক উকবা মসজিদ

আফ্রিকা মহাদেশের একেবারে উত্তরে ভূমধ্যসাগরের তীরবর্তী ছোট্ট দেশ তিউনিসিয়া। দেশটির উপকুলে ইসলামের আলো ছড়ানো মসজিদ কাইরুয়ান। যে মসজিদ থেকে আফ্রিকা মহাদেশে প্রথম আজান শুরু হয়। ইসলামের আগমন বার্তা প্রচারিত হতে থাকে সমুদ্র তীরবর্তী এ মসজিদ থেকে। ৫০ হিজরি সালে নির্মিত হয় এ মসজিদ।

সে হিসেবে মসজিদটি প্রায় হাজার বছরের পুরোনো। আফ্রিকা মহাদেশের এ প্রাচীন মসজিদটি স্থাপন করেন হজরত উকবা বিন নাফি রাহমাতুল্লাহি। ইসলামের অন্যতম খলিফা হজরত আমীর মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহুর সেরা সামরিক কমান্ডার এ উকবা বিন নাফি। তিনিই ৯ হাজার বর্গমিটার জায়গাজুড়ে এ মসজিদটি নির্মাণ করেন।

আর এ মসজিদ থেকেই আফ্রিকা মহাদেশে সর্বপ্রথম আজানের ধ্বনি উচ্চারিত হয়। তিউনিসিয়া দেশটি ছোট্ট হলেও এর প্রায় সব নাগরিকই মুসলিম। দেশটি ১৮৮১ সাল থেকে ফ্রান্সের অধীন ছিল। দীর্ঘদিন পর ১৯৫৬ সালে দেশটি ফ্রান্সের উপনিবেশ থেকে স্বাধীনতা লাভ করেন। বর্তমানে দেশটির রাষ্ট্রধর্মও ইসলাম।

আফ্রিকা মহাদেশের মুসলিম অধ্যুষিত ছোট্ট দেশটি বিভিন্ন কারণে পর্যটকদের জন্য জনপ্রিয় দর্শণীয় স্থান। তিউনিসিয়ার আবহাওয়া চমৎকার। সমুদ্র তীরবর্তী দেশটির রৌদ্রোজ্জ্বল আবহাওয়া ও নয়নজুড়ানো বেলাভূমিই পর্যটকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু। এ মসজিদটি স্থানীয় শহরের নামেই পরিচিত। কাইরুয়ান শহরের এ মসজিদটি স্থানীয় নাম ছাড়াও উকবা জামে মসজিদ নামেও পরিচিতি।

আফ্রিকা মহাদেশে এ মসজিদ থেকে প্রথম আজান দেয়ার কারণে ইসলামের ইতিহাসেও এ মসজিদের গুরুত্ব অপরিসীম। বাহির থেকে দেখতে মসজিদটিকে একটি শক্তিশালী দুর্গ মনে হয়। ৫ গম্বুজ ও ৯ প্রবেশ গেটে নির্মাণ করা হয়েছে এ মসজিদ। মসজিদের মেহরাবের কাছে ছোট নিচু ছাদ বিশিষ্ট ‘মাকসুরা’ নামে একটি কক্ষও রয়েছে।