ফিলিস্তিন সমস্যার সমাধান না হলে মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি আসবে না: কাতার

কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন আব্দুর রহমান আলে সানি বলেছেন, ফিলিস্তিন হচ্ছে মুসলিম বিশ্বের প্রধান ইস্যু এবং ফিলিস্তিন সমস্যার সমাধান না হলে মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি আসবে না।

তিনি এক টুইটে এ মন্তব্য করেছেন। খবর পার্সটুডে’র। ফিলিস্তিনিদের ওপর হত্যা-নির্যাতনের তীব্র নিন্দা জানিয়ে তিনি লিখেছেন, আন্তর্জাতিক আইন মেনে ফিলিস্তিন ইস্যুর একটি টেকসই ও

ন্যায়সঙ্গত সমাধান করা না হলে মধ্যপ্রাচ্যে কখনোই শান্তি আসবে না। কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ফিলিস্তিন ইস্যুতে কাতারের অবস্থান স্থিতিশীল এবং কাতার বিশ্বের অন্য মুসলিম দেশগুলোর মতো ফিলিস্তিন ইস্যুকে অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়।

ফিলিস্তিন ইস্যুতে কাতার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলে তিনি জানান। সৌদি আরব, বাহরাইন ও সংযুক্ত আরব আমিরাত যখন ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতার মাধ্যমে ইহুদিবাদী ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার চেষ্টা চালাচ্ছে তখন কাতারের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা দেয়া হলো।

সৌদি আরবে কোরআন প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় বাংলাদেশের হাফেজ শিহাব উল্লাহ্!

সৌদি আরবের পবিত্র মক্কায় কিং আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক কোরআন তিলাওয়াত প্রতিযোগিতায় তৃতীয় গ্রুপে (প্রথম ১৫ পারা) বিশ্বের মধ্যে দ্বিতীয় হয়েছেন বাংলাদেশের হাফেজ শিহাব উল্লাহ।

গতকাল বুধবার বাদ এশা মক্কার মসজিদুল হারামে শিহাবের হাতে পুরস্কার হিসেবে ৫০ হাজার সৌদি রিয়াল ও সম্মাননা তুলে দেন মক্কার মেয়র খালিদ বিন ফয়সাল। শিহাব উল্লাহ ঢাকার যাত্রাবাড়ীর তাহফিজুল কোরআন আয়াস সুন্নাহ মাদ্রাসার ছাত্র।

তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লায়। কাবা শরিফ মসজিদের নতুন ভবনে আয়োজিত ৪১তম কোরআন তিলাওয়াত প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের ধর্ম প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

এ ছাড়া অনুষ্ঠানে সৌদি আরবের ধর্মবিষয়ক মন্ত্রী ড. আবদুল লতিফ বিন আল শেখ, মক্কার হারাম শরিফের জ্যেষ্ঠ ইমাম ড. শেখ আবদুর রহমান আল সুদাইসও উপস্থিত ছিলেন। ১০৩টি দেশের ১৪৬ জন হাফেজ সৌদি আরবে কোরআন তিলাওয়াত প্রতিযোগিতায় অংশ নেন।

এর মধ্যে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে শ্রেষ্ঠ ১২ জন হাফেজ পুরস্কার পেয়েছেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে কোরআন তিলাওয়াত করেন বাংলাদেশের হাফেজ জাকারিয়া। তিনিও এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন।

অনুষ্ঠানে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহর উপস্থিতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেন মক্কার মেয়র ও সৌদি আরবের ধর্মমন্ত্রীসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ সময় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বলেন,

ভবিষ্যতে বাংলাদেশও এ রকম কোরআন তিলাওয়াত প্রতিযোগিতার আয়োজন করবে। এ সময় তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ ও সৌদি আরবের মধ্যে গভীর বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা স্মরণ করিয়ে দেন।