ফিলিস্তিনের ভূমি দখলের নেতানিয়াহু’র ঘোষণা; ইসরাইলকে জাতিসংঘের সতর্কবার্তা

জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরের জর্দান উপত্যকাকে ইহুদিবাদী ইসরাইলের সঙ্গে সংযুক্ত করার ব্যাপারে যু’দ্ধবাজ প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু যে ঘোষণা দিয়েছেন তা আন্তর্জাতিক আইনের চরম লঙ্ঘন।

গতকাল (বুধবার) জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন দোজারিচ এক বিবৃতিতে এ কথা বলেন। বিবৃতিতে বলা হয়, নেতানিয়াহুর ঘোষিত পরিকল্পনা যদি বাস্তবায়ন করা হয় তাহলে তা হবে আন্তর্জাতিক আইনের চরম লংঘন।

জাতিসংঘ মহাসচিব মনে করেন- নেতানিয়াহুর এ ধরনের পদক্ষেপের কারণে মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলে শান্তি প্রক্রিয়া মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তিনি বলেন, চলমান সংকটের দুই রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানের জন্য শান্তি আলোচনা শুরুর ব্যাপারে যে চেষ্টা চলছে নেতানিয়াহুর পদক্ষেপ তাতে মারাত্মক বিপর্যয় সৃষ্টি হবে।

মঙ্গলবার যুদ্ধবাজ নেতানিয়াহু জর্দান উপত্যকাকে ইসরাইলের সঙ্গে সংযুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আসন্ন নির্বাচনে যদি তিনি বিজয়ী হতে পারেন তাহলে এ পদক্ষেপ নেবে।

আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর ইসরাইলে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কথা রয়েছে। নেতানিয়াহুর এই ঘোষণা সারা বিশ্বে সমালোচনার ঝড় তুলেছে। ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষসহ মধ্যপ্রাচ্যের সব দেশ এর নিন্দা জানিয়েছে।

ইসরাইলের মিত্র কয়েকটি দেশ জর্দান এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের মতো দেশও নিন্দাবাদে যুক্ত হয়েছে। জর্দান উপত্যকায় রয়েছে পশ্চিম তীরের চার ভাগের এক ভাগ এলাকা। সুত্র: পার্সটুডে

সৌদি আরবে কোরআন প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় বাংলাদেশের হাফেজ শিহাব উল্লাহ্!

সৌদি আরবের পবিত্র মক্কায় কিং আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক কোরআন তিলাওয়াত প্রতিযোগিতায় তৃতীয় গ্রুপে (প্রথম ১৫ পারা) বিশ্বের মধ্যে দ্বিতীয় হয়েছেন বাংলাদেশের হাফেজ শিহাব উল্লাহ।

গতকাল বুধবার বাদ এশা মক্কার মসজিদুল হারামে শিহাবের হাতে পুরস্কার হিসেবে ৫০ হাজার সৌদি রিয়াল ও সম্মাননা তুলে দেন মক্কার মেয়র খালিদ বিন ফয়সাল। শিহাব উল্লাহ ঢাকার যাত্রাবাড়ীর তাহফিজুল কোরআন আয়াস সুন্নাহ মাদ্রাসার ছাত্র।

তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লায়। কাবা শরিফ মসজিদের নতুন ভবনে আয়োজিত ৪১তম কোরআন তিলাওয়াত প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের ধর্ম প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

এ ছাড়া অনুষ্ঠানে সৌদি আরবের ধর্মবিষয়ক মন্ত্রী ড. আবদুল লতিফ বিন আল শেখ, মক্কার হারাম শরিফের জ্যেষ্ঠ ইমাম ড. শেখ আবদুর রহমান আল সুদাইসও উপস্থিত ছিলেন। ১০৩টি দেশের ১৪৬ জন হাফেজ সৌদি আরবে কোরআন তিলাওয়াত প্রতিযোগিতায় অংশ নেন।

এর মধ্যে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে শ্রেষ্ঠ ১২ জন হাফেজ পুরস্কার পেয়েছেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে কোরআন তিলাওয়াত করেন বাংলাদেশের হাফেজ জাকারিয়া। তিনিও এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন।

অনুষ্ঠানে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহর উপস্থিতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেন মক্কার মেয়র ও সৌদি আরবের ধর্মমন্ত্রীসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ সময় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বলেন,

ভবিষ্যতে বাংলাদেশও এ রকম কোরআন তিলাওয়াত প্রতিযোগিতার আয়োজন করবে। এ সময় তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ ও সৌদি আরবের মধ্যে গভীর বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা স্মরণ করিয়ে দেন।