আরেকটি ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা থেকে শ্রীলঙ্কাকে বাঁচাল মুসলিম যুবক

শ্রীলঙ্কায় আরেকটি সন্ত্রাসবাদী হামলা সম্পর্কে প্রথমে সতর্ক করেছিল এক মুসলিম যুবক। তার জের ধরেই গত শুক্রবার ১৫ জন সন্ত্রাসবাদীকে গুলি করে হত্যা করে নিরাপত্তা বাহিনী।

এই সংবাদ প্রকাশ করেছে ‘দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’। গত শুক্রবার লোহার পুলের পাশে একটি বাড়ির ভেতর রাইফেল হাতে এক ব্যক্তিকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে সন্দেহ হয়েছিল শ্রীলঙ্কাবাসী এক মুসলিম যুবকের।

বন্ধুদের সেই কথা জানালে সকলে মিলে সেই বাড়ির সামনে গিয়ে ওই ব্যক্তির পরিচয়পত্র চায়। স্থানীয় তরুণদের জেরার মুখে সে কোণঠাসা হয়ে পড়তেই বাড়ির ভিতর থেকে আর একজন গুলি ছোড়ে।

বিপদ বুঝে কাছাকাছি মসজিদ সমিতিকে বিষয়টি খুলে বলেন তরুণরা। এবার আরো বেশ কয়েকজন মিলে বাড়িটির সামনে পৌঁছে চেঁচামেচি শুরু করে। আচমকা বাড়ির জানলা থেকে ভিড় লক্ষ্য করে শুরু হয় নোটবৃষ্টি।

কাণ্ড দেখে এবার পুলিশকে গিয়ে সব জানানো হয়। এরপর পুলিশ এবং সেনাবাহিনী ওই বাড়ি ঘিরে ফেলার পরে আত্মগোপনকারী সন্ত্রাসবাদীদের সঙ্গে গোলাগুলি শুরু হয়। এ ঘটনায় শিশুসহ মোট ১৫ জনের মৃত্যু হয়।

জানা যায়, ইস্টার হামলার পরে শ্রীলঙ্কায় ফের সন্ত্রাসবাদী হানার ছক সাজিয়েছিল জঙ্গি নেতা জাহরান হাশিম। সংঘর্ষে মারা যায় তার বাবা ও ভাই।

সুত্র: এই সময়

আরো পড়ুন: আফ্রিকায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় মসজিদ নির্মাণ করলো চীনা প্রতিষ্ঠান !

চীনে যেখানে ‍উইঘুর সম্প্রদায়ের মুসলিমদের বন্দিশিবিরে রেখে নির্যাতনের খবর বিশ্বকে নাড়িয়ে দিচ্ছে, ঠিক তখনই একটি চীনা প্রতিষ্ঠান আফ্রিকার সবচেয়ে বড় মসজিদ নির্মাণে কাজ করেছে। আলজেরিয়ার রাজধানী আলজিয়ার্সে চালু হওয়ার জন্য অপেক্ষায় থাকা ওই মসজিদটি নির্মাণে সময় লেগেছে সাত বছর।

দ্য গ্রেট মস্ক অব আলজিয়ার্স বা জামা আল জাজেইর নামের এই মসজিদটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ১০০ কোটি ডলারের বেশি। চার লাখ স্কয়ার মিটার এলাকার ওপর নির্মিত মসজিদটিতে একটি ২৬৫ মিটার (৮৭০ ফুট) মিনার রয়েছে। ওই মিনারের ভেতর একটি পর্যবেক্ষণ ডেকও রয়েছে।

আলজিয়ার্স উপকূলের কাছে অবস্থিত যৌগিক গম্বুজ বিশিষ্ট এই মসজিদে একসাথে ১২ লাখ মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন। এছাড়া মসজিদে যে ভূগর্ভস্থ পার্কিং রয়েছে সেখানে সাত হাজার গাড়ি রাখার ব্যবস্থা আছে।
মসজিদ কমপ্লেক্সে কুরআনিক স্কুল, লাইব্রেরি, রেস্টুরেন্ট, অ্যাম্ফিথিয়েটার এবং আলজেরিয়ার ইতিহাসের জন্য নিবেদিত একটি গবেষণা কেন্দ্র রয়েছে।

আয়তনের হিসেবে এই মসজিদটি এখন বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম। বিশ্বে আয়তনের দিক দিয়ে বৃহত্তম মসজিদ হচ্ছে মক্কার পবিত্র মসজিদ ‘বায়তুল্লাহ এবং মদিনার ‘মসজিদে নববী’। এই দুটি মসজিদই মুসলিমদের পবিত্রতম স্থান এবং প্রতিবছর লাখ লাখ মুসল্লি হজের সময় এই মসজিদে ইবাদত করেন।

এদিকে দ্য গ্রেট মস্ক অব আলজিয়ার্স মসজিদের মিনারটি আফ্রিকার সবচেয়ে উঁচু। আগে আফ্রিকার সবচেয়ে উঁচু মিনার ছিল মরক্কোর কাসাব্লাঙ্কার হাসান দ্বিতীয় মসজিদের। ওই মসজিদের মিনারের উচ্চতা ৬৭০ ফুট।
অন্যদিকে গত বছরের শেষের দিকে মসজিদটি উদ্বোধন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বিশ্বব্যাপী তেলের দাম কমে যাওয়ায় মসজিদটির বাজেট সঙ্কট দেখা দেয়। ফলে এর নির্মাণ বিলম্বিত হয়।

উল্লেখ্য, আলজিয়ার্সের মসজিদটি নির্মাণ করেছে চায়না স্টেট কনস্ট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং করপোরেশন (সিএসসিইসি)। চীনের বহুজাতিক এই প্রতিষ্ঠানটি আফ্রিকা ও বিশ্বব্যাপী ভারী শিল্প ও অবকাঠামো নির্মাণে কাজ করে।

এ/জেএইচ