অবশেষে কাশ্মীর নিয়ে আলচোনায় বসছে ভারত ও পাকিস্তান

কাশ্মীর নিয়ে ভারত-পাক উত্তেজনার মধ্যেই শুক্রবার কর্তারপুর করিডর নিয়ে আলচোনায় বসছে ভারত ও পাকিস্তান। পাকিস্তানের বিদেশ মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে যে, কর্তারপুর করিডর নিয়ে আলোচনার বিষয়ে ভারত সরকারের কাছে একটি প্রস্তাব পাঠানো হয়েছিল।

সেই প্রস্তাবে সম্মতি জানিয়ে শুক্রবার দুই দেশের সীমান্তের ‘জিরো পয়েন্টে’ দাঁড়িয়ে কর্তারপুর করিডর নিয়ে শেষবারের মত একটি বৈঠকে বসতে চলেছে ভারত এবং পাকিস্তান। পাক বিদেশ মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, পূর্ব প্রতিশ্রুতিকে মাথায় রেখে ভারত পাক সীমান্তে তৈরি এই শহিদ করিডোরটির উদ্বোধন করা হবে আগামী নভেম্বর মাসে গুরু নানকের ৫৫০ তম জন্ম বার্ষিকীর দিন।

জানা গিয়েছে শহিদ করিডরটি উদ্বোধন করবেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। কিন্তু উদ্বোধনের দিন ভারত সরকারের পক্ষথেকে কোনও মন্ত্রী সেদিন ওখানে উপস্থিত থাকবেন কি না সে ব্যাপারে স্পষ্ট ভাবে কিছু জানা যায়নি। যদিও ভারত সরকারের পক্ষ থেকে কর্তারপুর করিডর নিয়ে প্রযুক্তিগত বিষয়ে আলোচনার জন্য আগামী মাসে আটারি সীমান্তে পাকিস্তানের সঙ্গে বৈঠকে বসার কথা বলা হয়েছিল।

জানা গিয়েছে, ভারতের সঙ্গে আলোচনায় পাকিস্তান যদি সম্মত হয় তাহলে এই নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে তিন বার সরকারি বৈঠক বসতে চলেছে। কারতারপুর নিয়ে এর আগে গত মার্চ এবং জুলাই মাসে পাকিস্তানের সঙ্গে দুবার বৈঠকে বসেছিল ভারত সরকার।

সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে, জুলাই মাসে দুই দেশের এই সরকারি সম্মেলনে কর্তারপুর শহিদ করিডর নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের মিলিত ভাবে গড়ে তোলা রাস্তা এবং প্রযুক্তিগত নানা বিষয়। ১৪ জুলাই দ্বিতীয় বার বৈঠকে বসে পাকিস্তান কারতারপুর শহিদ করিডরে প্রবেশের জন্য একটি ব্রিজ বানাতে সম্মত হয়।

যার ফলে ভারত থেকে আসা শিখ তীর্থ যাত্রীরা এই ব্রিজটির সুবিধা নিতে পারেন। শুধু তাই নয় পাক প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, দুই দেশের মিলিত আলাপ আলোচনার মাধ্যমে এই ব্রিজ তৈরি করা হবে যাতে, আপতকালীন কোনও দরকারে বা দুর্ঘটনা ঘটলে মেডিকেল সাহায্যের জন্য তাড়াতাড়ি এই ব্রিজ ব্যবহার করতে পারে সবাই। এ খবর দিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম কলকাতা২৪।

পাকিস্তান সরকারের তরফে জানানো হয়েছে যে, করিডর টি তৈরি করা হচ্ছে সেটি ভারতের গুরুদাসপুর জেলা থেকে মাত্র চার কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এবং এটি উত্তর লাহোর থেকে প্রায় একশোকুড়ি কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। যেখানে গুরুনানক তাঁর মৃত্যুর(১৫৩৯) আগে প্রায় আঠারো বছর থেকেছিলেন।