ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোনের পর সাঁজোয়া যানের বহর প্রদর্শন করল ইয়েমেন

ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন তৈরিতে নিজেদের দক্ষতা ও সক্ষমতা প্রমাণের পর এবার উন্নত সাঁজোয়া যান নির্মাণ ও প্রদর্শন করেছে ইয়েমেনের ন্যাশনাল স্যালভেশন সরকার।

জনপ্রিয় সংগঠন আনসারুল্লাহ সমর্থিত এই সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গতরাতে (শনিবার রাতে) নিজস্ব প্রযুক্তিতে তৈরি সাঁজোয়া গাড়ির বহর প্রদর্শন করেছে। ইয়েমেনি বিশেষজ্ঞদের নির্মিত এই সাঁজোয়া যানের নাম দেওয়া হয়েছে বাস-ওয়ান। এরই মধ্যে এই মডেলের বেশ কয়েকটি যান নির্মাণ ও তা প্রদর্শন করা হয়েছে। ইয়েমেনের সংবাদ মাধ্যমে এসব তথ্য জানিয়েছে।

ইয়েমেনের ন্যাশনাল স্যালভেশন সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল করিম আমির উদ্দিন আল-হুথি গতরাতে এসব সাঁজোয়া যান উদ্বোধন করে বলেছেন, এসব সামরিক যান অত্যন্ত উন্নতমানের এবং যুদ্ধ ক্ষেত্রে ও গোয়েন্দা তৎপরতায় এগুলো ব্যবহার করা হবে।

তিনি আরও বলেন. ইয়েমেনের গণআন্দোলনের নেতা আবদুল মালিক বদরুদ্দিন আল-হুথির নির্দেশনা অনুযায়ী তারা এসব কাজ এগিয়ে নিচ্ছেন।

আগ্রাসীদের হামলা এবং নানা নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও সামরিক শক্তি বাড়ানোর কাজ এগোচ্ছে বলে তিনি জানান। এ সময় সেদেশের উচ্চ পদস্থ সামরিক ও নিরাপত্তা কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গত প্রায় তিন বছরে ইয়েমেনের সামরিক বিভাগ উন্নত ক্ষেপণাস্ত্রের পাশাপাশি উন্নত ড্রোন নির্মাণ করেছে। এসব ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন সৌদি আরবের বিরুদ্ধে সাফল্যের ব্যবহার করতে সক্ষম হয়েছে।

২০১৫ সালের ২৬ মার্চ থেকে ইয়েমেনে আগ্রাসন চালিয়ে আসছে সৌদি আরব ও তার কয়েকটি মিত্র দেশ।

আমাদের গোটা জাতি ফিলিস্তিনিদের পক্ষে: ইমরান খান

পাকিস্তানের ইমরান খান বলেছেন, পাকিস্তান একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র। আমাদের গোটা জাতি ফিলিস্তিনিদের পক্ষে। যতক্ষণ না ফিলিস্তিনিদের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়, ততক্ষণ আমরা কিছুতেই ইসরাইলকে স্বীকৃতি দেব না। শুক্রবার পাকিস্তানের সামা টিভিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে দেশটির প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। খবর আরব নিউজের।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর একজন গুরুত্বপূর্ণ উপদেষ্টা সম্প্রতি ইসরাইল সফর করেছেন বলে ইসরাইলের গণমাধ্যমে যে খবর বেরিয়েছে তা প্রত্যাখ্যান করেন ইমরান খান। তিনি এ প্রতিবেদনকে ভিত্তিহীন আখ্যা দিয়ে উল্টো প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে বলেন, ইসরাইলকে যেহেতু ইসলামাবাদ স্বীকৃতিই দেয় না, তা হলে কেন পাকিস্তানের মন্ত্রী কিংবা গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি তেলআবিব সফর করবেন? এটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন প্রতিবেদন।

একই দিন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেহমুদ কোরেশি ওই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে বলেন, তেলআবিবে ইসরাইল ও পাকিস্তানের গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাদের কোনো বৈঠক হয়নি। আবুধাবিতে রাষ্ট্রীয় সফরে গিয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বুধবার ইসরাইলের কয়েকটি পত্রপত্রিকা খবর দিয়েছে যে, ইমরান খানের একজন শীর্ষ পর্যায়ের উপদেষ্টা গত মাসে গোপনে ইসরাইল সফর করেছেন। প্রচারণামূলক ওই খবরে ইসরাইলি গণমাধ্যমগুলো দাবি করেছিল যে, ইমরান খানের পক্ষ থেকে বিশেষ বার্তা বহন করে নিয়ে গেছেন ওই উপদেষ্টা। ইসরাইলি গণমাধ্যম আরও দাবি করেছে যে, রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার আগ্রহ নিয়ে ইমরান খান তার উপদেষ্টাকে বার্তা পাঠিয়েছেন। ইসরাইলের প্রভাবশালী পত্রিকা জেরুজালেম পোস্টও এ খবর প্রকাশ করেছিল; কিন্তু পরে তা প্রত্যাহার করে নেয়।