কলঙ্কজনক চুক্তির বিরুদ্ধে ফিলিস্তিনি জাতি অভিন্ন অবস্থান নিয়েছে: হামাস

ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের পলিটব্যুরো প্রধান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইসমাইল হানিয়া বলেছেন, ইহুদিবাদী ইসরাইলের সঙ্গে কিছু আরব দেশের সম্পর্ক স্থাপনের বিষয়টি ফিলিস্তিনি জনগণ কখনো মেনে নেবে না।

তিনি গতকাল (মঙ্গলবার) ফিলিস্তিনের স্বশাসিত সরকারের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের সঙ্গে এক টেলিফোনালাপে এ সংকল্প ব্যক্ত করেন।

ইসমাইল হানিয়া বলেন, তেল আবিবের সঙ্গে কিছু আরব দেশের কলঙ্কজনক চুক্তি স্বাক্ষরের ব্যাপারে ফিলিস্তিনি সংগঠনগুলো অভিন্ন অবস্থান নিয়েছে এবং তারা ফিলিস্তিনি জাতির বিরুদ্ধে শত্রুতা পোষণকারীদের মোকাবিলায় ঐক্যবদ্ধ থাকবে।

টেলিফোনালাপে মাহমুদ আব্বাস বলেন, ফিলিস্তিনি জনগণ যখন ইহুদিবাদী ইসরাইলকে শত্রু মনে করছে তখন তেল আবিবের সঙ্গে যেকোনো ধরনের চুক্তি বাতিল বলে বিবেচিত হবে।

গতকাল (মঙ্গলবার) ফিলিস্তিনের মজলুম জাতি তথা গোটা মুসলিম বিশ্বের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করে দখলদার ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের চুক্তি সই করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের আবাসিক দপ্তর হোয়াইট হাউজে চুক্তিতে সই করেন আমিরাতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল্লাহ বিন জায়েদ আলে নাহিয়ান এবং বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিন রাশেদ আল যিয়ানি।মুসলমানদের প্রথম কেবলা মসজিদুল আকসার দখলদার ইসরাইলের পক্ষে চুক্তিতে সই করেছেন বর্ণবাদী প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু।

সূত্র: পার্সটুডে

ইসলামের শত্রু ইসরাইলকে কখনো বন্ধু না বানানোর হুঁশিয়ারি কাতারের

কথিত মুসলিম রাষ্ট্র সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন ইহুদিবাদী দখলদার রাষ্ট্র ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করলেও এমন পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে অস্বীকৃতি জানিয়েছে কাতার।

দেশটির এক সরকারি কর্মকর্তা বলেছেন, ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংকটের সমাধান হতে পারে না সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণ। উপসাগরীয় অন্যান্য আরব দেশের মতো কাতার ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করবে না। মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা এ খবর জানিয়েছে।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ললওয়াহ আল-খাতের বলেন, আমরা মনে করি না এই সংকটের মূলে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণ রয়েছে। তাই এই উদ্যোগ সংকটের সমাধান হতে পারে না।

কাতারি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, এই সংকটের মূলে রয়েছে ফিলিস্তিনি জনগণ দুঃসহ জীবনযাপন করছে কোনও দেশ ছাড়া দখলদারিত্বের মধ্যে।

আল-খাতের এমন সময় এই মন্তব্য করলেন যখন বাহরাইন ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসে ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের চুক্তির স্বাক্ষর অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে।

বিতর্কিত এই চুক্তির ফলে ইসরায়েলের সঙ্গে দুটি আরব দেশের কূটনৈতিক, বাণিজ্যিক, নিরাপত্তা ও অন্যান্য বিষয়ে সম্পর্ক স্থাপিত হবে।

পাকিস্তানের জন্য হুমকি হতে রাফালের বহু বছর লাগবে