রাতের অন্ধকারে আকাশ চিরে বুর্জ খালিফায় ফুটে উঠল ঈদের শুভেচ্ছা

বিশ্বের সব থেকে উঁচু বিল্ডিং, দুবাইয়ের পরিচিতি হয়ে ওঠা বুর্জ খালিফার গায়ে ফুটে উঠল ঈদের শুভেচ্ছা। বিভিন্ন সময়, একাধিক ইস্যুতে বুর্জ খালিফার গায়ে এমন বার্তা ফুটে উঠতে দেখা গিয়েছে, কখনও তা কোনও দেশের স্বাধীনতা দিবস হোক বা কখনও তা মঙ্গল-অভিযানে শুভেচ্ছা জানানোর ক্ষেত্রেই হোক। এবার ইদের শুভেচ্ছা জানাতে বুর্জ খালিফার গায়ের আলো ঝলমলিয়ে উঠল।

গোটা বিশ্ব জুড়ে ঈদ উদযাপনের প্রস্তুতি প্রায় সারা। ভারত বাংলাদেশ পাকিস্তানে ঈদ পালিত হবে শনিবার, পয়লা অগস্ট। তবে তার এক দিন আগে আরবের দেশগুলিতে ঈদ পালিত হচ্ছে। আর সেই উৎসবে নিজেদের স্টাইলেই যোগ দিল বুর্জ খালিফাও। ঈদের উৎসব মানুষ পুরোপুরি মেতে ওঠার আগেই বুর্জ খালিফার গায়ে অজস্র এলইডিতে ফুটে উঠল ‘ঈদ মুবারক’।

ইংরেজি ও আরবিতে পর্যায়ক্রমে সেই শুভেচ্ছা ছড়িয়ে পড়তে থাকে বুর্জ খালিফার গোটা গায়ে। দূর থেকে সেই দৃশ্য ক্যামেরাবন্দি হয়। পরে যা বুর্জ খালিফার ভেরিফায়েড টুইটার হ্যান্ডলে পোস্ট করা হয়।

বুর্জ খালিফার গায়ে এই ঈদ মুবারক বার্তা গতকাল বৃহস্পতিবার জ্বলে উঠেছে। এটি থাকবে রবিবার পর্যন্ত। বিশ্বের অনেক দেশে পাঁচ-ছ’ দিন ধরে চলে ঈদ উদযাপন। ইতিমধ্যেই এই ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

এবার ফিলিস্তিনিদের পবিত্র ঈদুল আজহারের নামাজ পড়তে দেইনি ইসরাইল

ফিলিস্তিনের হেবরণ প্রদেশের ইবরাহিমী মসজিদের সামনে ভারি অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ফিলিস্তিনি মুসলমানদের ঈদুল আজহার নামাজ আদায়ে বাধা দিয়েছে ইহুদিবাদী ইসরাইলের সৈন্যরা।

পবিত্র ঈদুল আজহার দিন আজ সকাল থেকেই হেবরণের ইবরাহিমী মসজিদের গেট বন্ধ রাখতে বাধ্য করেছে তারা। এমনকি বাহির থেকে কাউকে মসজিদে প্রবেশও করতে দেয়নি যুদ্ধবাজ ইসরাইলিরা।

পরবর্তিতে বন্ধ দরজার ভেতরে মসজিদের মধ্যে থাকা মুসুল্লিরাই গাদাগাদি করে ঈদের নামাজ আদায় করেন এবং তারা বাইরে বের হতে পারেননি।

বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়ে ফিলিস্তিন মুক্তি আন্দোলনের এক নেতা বলেন – ঈদের দিন এভাবে মসজিদ বন্ধ করে দিয়ে ইহুদিবাদীরা বারবার প্রমাণ করছে যে তারা ফিলিস্তিন ইস্যুতে বর্বরতার দিকে আগাচ্ছে সব সময়। নয়ত ঈদুল আজহার দিনেও মসজিদ বন্ধ করে দেওয়ার মতো এ কাজ তারা করতে পারতো না।