লিবিয়ায় নিয়ে নাক না গলাতে মিশর ও আমিরাত কে এরদোগানের হুঁশিয়ারি

লিবিয়াতে মিসর ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের তৎপরতার নিন্দা জানিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান। হাফতারকে সহায়তায় মিসর যেসব পদক্ষেপ নিচ্ছে, তা সবই অবৈধ বলে সাব্যস্ত করেন তিনি এবং আরব আমিরাতের আচরণকে দস্যুতার সাথে তুলনা করেন।

এর আগে মিসরের প্রেসিডেন্ট আবদুল ফাত্তাহ আল-সিসি রাজধানী কায়রোতে লিবিয়ার বেনগাজির উপজাতি নেতাদের সাথে আলোচনা করেন। এ সময় তিনি লিবিয়ার আন্তর্জাতিক স্বীকৃত জিএনএ সরকারকে হুমকি দিয়ে বলেন, আঞ্চলিক নিরাপত্তার স্বার্থে লিবিয়া ইস্যুতে মিসর চুপ করে বসে থাকবে না।

তবে এমন হুমকিকে যুদ্ধের উসকানি হিসেবে দেখছে জিএনএ সরকার। একইসাথে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে, উপজাতি গোষ্ঠীগুলোকে অস্ত্র দিয়ে লিবিয়াকে আরো অস্থিতিশীল করতে চাইছে মিসর। লিবিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র এক বিবৃতিতে সিসির এমন মন্তব্যকে লিবিয়ার আভ্যন্তরীণ ইস্যুতে হস্তক্ষেপ হিসেবে উল্লেখ করেন। এরপরই তুর্কি প্রেসিডেন্ট এমন নিন্দা জানালেন।

লিবিয়া যুদ্ধে দেশটির জিএনএ সরকারকে সমর্থন দিচ্ছে তুরস্ক। অপর দিকে মিসর, আরব আমিরাত ও রাশিয়া এর শত্রুপক্ষ বিদ্রোহী নেতা জেনারেল খলিফা হাফতারের দলকে সমর্থন দিচ্ছে। লিবিয়ার পূর্বাঞ্চল নিয়ন্ত্রণ করেন খলিফা হাফতার। সম্প্রতি তুরস্ক জিএনএ সরকারের সমর্থনে লিবিয়ায় সেনা পাঠালে চাপের মুখে পড়ে বিদ্রোহীরা। বেশ কিছু শহর আবার দখলে নিতে সক্ষম হয় জিএনএ সরকার।

এ কারণে এ সপ্তাহে দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় বিদ্রোহী সরকার মিসরকে এ যুদ্ধে অংশ নেয়ার আহ্বান জানায়। এ প্রেক্ষাপটে এরদোগান বলেন, মিসর লিবিয়ায় প্রবেশ করলেও জিএনএকে সহায়তা চালিয়ে যাবে তুরস্ক। তা ছাড়া গত মাসে মিসরের প্রেসিডেন্ট আবদুল ফাত্তাহ আলসিসি বলেন,

মধ্যাঞ্চলীয় সির্তে-জুফরা মহাসড়কে ত্রিপোলি সরকার ও তুর্কি সৈন্যরা আবার আক্রমণ চালালে মিসরের সৈন্যরা লিবিয়ায় প্রবেশ করতে পারে। উল্লেখ্য, ওই মহাসড়কটি লিবিয়ার প্রধান তেল রফতানি কেন্দ্রগুলোর প্রবেশপথ মনে করা হয়। আর এসব কেন্দ্র এখন হাফতার বাহিনীর দখলে রয়েছে।

তেলসমৃদ্ধ লিবিয়ার স্থিতিশীলতা পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যায় ২০১১ সালে পশ্চিমা সমর্থিত বিদ্রোহীদের হাতে কর্নেল ময়াম্মার গাদ্দাফির পতনের মাধ্যমে। তারপর থেকে লিবিয়ায় চলছে সীমাহীন সঙ্ঘাত। গাদ্দাফি ক্ষমতাচ্যুত ও নিহত হওয়ার পর ত্রিপোলিতে জাতিসঙ্ঘ সমর্থিত একটি মনোনীত সরকার রয়েছে। ওই কর্তৃপক্ষকে জাতীয় ঐকমত্যের সরকার বা জিএনএ নামে অভিহিত করা হয়। তবে দেশের বিরাট অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ বিভিন্ন বিদ্রোহী গোষ্ঠীর হাতে রয়ে গেছে।

পশ্চিমাঞ্চলে জিএনএ-এর কর্তৃত্ব থাকলেও পূর্ব ও দক্ষিণের বেশির ভাগ অঞ্চল হাফতার বাহিনী কবা এলএনএ-এর দখলে। ত্রিপোলির জাতিসঙ্ঘ স্বীকৃত সরকারকে সমর্থন দিচ্ছে তুরস্ক, ইতালি ও ব্রিটেন। আর হাফতার বাহিনীর সমর্থনে রয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত, রাশিয়া, ফ্রান্স, মিসর ও সৌদি আরব।

লিবিয়ার তেল সম্পদের বেশির ভাগই নিয়ন্ত্রণ করেন হাফতার। তাই এর দখলে অভিযান চালাচ্ছে তুরস্ক ও জিএনএ সরকার। চাপে রয়েছেন হাফতারও। আর একটি অঞ্চল হারালেও অনেকখানি তেলের দখল পেয়ে যাবে লিবিয়ার আন্তর্জাতিক স্বীকৃত সরকার।

এ জন্য লিবিয়ার আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সরকারকে মোকাবেলায় দেশটিতে সামরিক হস্তক্ষেপ করতে মিসরের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে হাফতার বাহিনী। মিসর ও সংযুক্ত আরব আমিরাত সমর্থিত এ বাহিনী ইতোমধ্যে দেশটির পূর্বাঞ্চলের বিস্তৃত এলাকার দখল নিতে সমর্থ হয়েছে। সেখানে নিজস্ব স্টাইলে পার্লামেন্টও স্থাপন করা হয়েছে। লিবিয়ার আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সরকারের প্রতি তুরস্কের সমর্থন মোকাবেলায় মিসরের সামরিক হস্তক্ষেপ অনুমোদনের একটি প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে হাফতারের পার্লামেন্ট।

আরও সংবাদ

‘ইসরাইলি অশুভ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হতে দেবে না ফিলিস্তিন’

ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস বলেছে, বায়তুল মুকাদ্দাস ও মসজিদুল আকসা ফিলিস্তিনি জাতি ও প্রতিরোধ ফ্রন্টের রেড লাইন; কাজেই পবিত্র এই স্থাপনার প্রতি সমর্থন জানানো বিশ্বের সকল মুসলমানের ধর্মীয় ও নৈতিক দায়িত্ব।

হামাসের মুখপাত্র ফৌজি বারহুম গাজা উপত্যকায় ইসরাইল বিরোধী এক প্রতিবাদ সমাবেশে দেওয়া ভাষণে এ কথা বলেন। মসজিদুল আকসার বাব-আর-রাহমাহ চত্বরে নামাজ আদায়ের ওপর ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ যে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে তার প্রতিবাদে ওই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

বারহুম বলেন, বায়তুল মুকাদ্দাস (জেরুজালেম) ফিলিস্তিনের চিরকালীন রাজধানী। আমেরিকা ও ইহুদিবাদী ইসরাইল যতই তাদের কথিত শতাব্দির সেরা চুক্তি বাস্তবায়নের চেষ্টা করুক না কেন এ বাস্তবতা মুছে যাবে না।

প্রতিবাদ সমাবেশে ইসলামি জিহাদ আন্দোলনের কেন্দ্রীয় নেতা খাদার হাবিব বলেন, কুদস শরীফকে কেন্দ্র করে ইহুদিবাদী ইসরাইল যেসব অশুভ পরিকল্পনা প্রণয়ন করছে ফিলিস্তিনি জনগণ তার কোনোটি বাস্তবায়নের অনুমতি দেবে না।