মহামারী রুখতে হলে আগে গরীবদের করোনা ভ্যাকসিন দিন: বিল গেটসের

করোনা নিয়ে বিশ্ব যেন তোলপাড়। দিনে দিনে এই মারণ ভাইরাসের প্রকোপ বেড়েই চলেছে। সারা দেশের প্রতিনিয়ত বিজ্ঞানীরা ভ্যাকসিন আবিস্কারের চেষ্টা করে চলেছে। এবার বিশ্ববাসীকে মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস (Bill Gates) বললেন, যার বেশি দরকার তাকেই আগে দাও করোনার ভ্যাকসিন।

যে বেশি দর হাঁকবে তাকে নয়। ন্যায় ও সংহতির পথে না চললে এই অতিমহামারীর তাণ্ডব থামানো সম্ভব নয়।তিনি আরও বলেন, কোভিডের ভ্যাকসিন গবেষণায় কোটি কোটি টাকা খরচ করছে বহু দেশ।

ভ্যাকসিন দৌড়ে এগিয়ে আছে যে দেশগুলি তাদের উচিত গরিব ও উন্নয়নশীল দেশগুলিতে আগে করোনার টিকা পৌঁছে দেওয়া। বেশি দামে শুধু ধনীদেরই ভ্যাকসিন বিকিয়ে দিলে স্বাস্থ্য সঙ্কটের মোকাবিলা করা সম্ভব নয়।

আন্তর্জাতিক এইডস সোসাইটির একটি কনফারেন্সে মাইক্রোসফট কর্তা বলেন, “যে বেশি দাম দেবে শুধু তাকেই করোনার ড্রাগ বা ভ্যাকসিন বিক্রি করলে লাভের লাভ কিছুই হবে না। বরং এমনভাবে বিশ্বের সব দেশে ভ্যাকসিন পৌঁছে দিতে হবে যাতে গরিব ও প্রত্যন্ত এলাকায় থাকা মানুষগুলো আগে সুবিধা পায়।

অধিকারের পাল্লাটা একদিকেই হেলে থাকলে এ মহামারী আরও ভয়ঙ্কর পর্যায়ে পৌঁছে যাবে।”বিশ্বের সব দেশকেই উদ্দেশ্য করে বিল গেটস বলেন, রাষ্ট্রনেতাদের উচিত সামঞ্জস্য রেখেই কোভিড ভ্যাকসিনের বিপণন করা।

বিশ্বের যে দেশের যে এলাকায় সংক্রমণের প্রকোপ বেশি আগে সেখানে টিকা পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। শুধুমাত্র বাজার দর দেখে সিদ্ধান্ত নিলে চলবে না। সংক্রমণ সার্বিক স্তরে ঠেকাতে গেলে নিঃস্বার্থ মনোভাব নিয়েই চলতে হবে। সূত্র: বাংলা হান্ট

‘আমেরিকা-ইসরাইলের জন্য কঠিন দিন অপেক্ষা করছে’

মার্কিন বিমানবাহী রণতরী ইউএসএস বোনহোম রিচার্ডে বিস্ফোরণ ও ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড
মার্কিন বিমানবাহী রণতরী ইউএসএস বোনহোম রিচার্ডে বিস্ফোরণ ও ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড
ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’র কুদস ফোর্সের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইসমাইল কায়ানি বলেছেন, মার্কিন সরকার যে অপরাধযজ্ঞ করে বেড়াচ্ছে তার পরিণতি হচ্ছে- বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজে বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ড।

শীর্ষ পর্যায়ের কমান্ডারদের এক বৈঠকে দেয়া বক্তৃতায় জেনারেল কায়ানি এসব কথা বলেন। মার্কিন বিমানবাহী রণতরী ইউএসএস বোনহোম রিচার্ডে বিস্ফোরণ ও ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার দিকে ইঙ্গিত করেন তিনি। এজন্য তিনি দোষীদের খুঁজে বেড়াতে আমেরিকার জনগণকে সময় অপচয় না করার আহ্বান জানান।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইসমাইল কায়ানি
জাহাজে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কাউকে অভিযুক্ত করার প্রবণতা বন্ধ করার কথাও বলেন জেনারেল কায়ানি। তিনি বলেন, এটা এমন এক আগুন যা তাদের নিজেদেরকেই পুড়িয়ে মারবে। তিনি বলেন, “এই ঘটনা তোমাদের নিজেদের অপরাধের জবাব।

আল্লাহ তোমাদের অপরাধের সাজা দেয়ার জন্য তোমাদের নিজেদের হাত কাজে লাগিয়েছেন। আমেরিকায় আজ যা ঘটছে তা হলো মার্কিন প্রশাসনের কর্মকাণ্ড, আচরণ ও বর্বরতার সরাসরি ফল।”

ইরানের এ জেনারেল আরো বলেন, আগামী দিনগুলোতে ইহুদিবাদী ইসরাইল ও আমেরিকাকে কঠিন সময় পার করতে হবে। তোমাদের জন্য অনেক কঠিন সময় ও নানা ঘটনা অপেক্ষা করছে।” সুত্র: পার্সটুডে

প্রাপ্তবয়স্ক নারী অন্য বাড়িতে স্বাধীনতা ভোগ করা অপরাধ নয়: সৌদি আদালত

সৌদি আরবে প্রাপ্তবয়স্ক কোনো নারী অন্য বাড়িতে স্বাধীনতা ভোগ করলে তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ নয়। গত সোমবার রিয়াদের একটি আদালত এ ব্যাপারে রুল জারি করেছে।

জানা গেছে, একজন তরুণী তার পরিবারকে চিঠিতে জানিয়েছিল, নিজে স্বাধীনতা ভোগ করার জন্য আলাদা বাড়িতে থাকতে চায়। সে ঘটনার জেরে ওই তরুণীর বিরুদ্ধে আদালতে যায় তার পরিবার। ওই মামলার শুনানির পর এ রুল জারি করেন বিচারক।

আইনজীবী আবদুল রহমান আল লাহিম বলেছেন, বাদিপক্ষের আইনজীবীর দাবি ছিল- অল্পবয়সী নারী তার পরিবারের সম্মতি ছাড়াই রিয়াদের বাইরে গিয়েছিল। বিচারক বলেছেন, অন্য বাড়িতে কোনো নারী স্বাধীনতা ভোগ করলে তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ নয়।

মামলা খারিজ করে দিয়ে আদালত জানিয়েছে, প্রাপ্তবয়স্ক নারী নিজে ঠিক করবেন- তিনি কোথায় থাকবেন। স্বাধীনতা ভোগ করার অধিকার তাদের রয়েছে।

সূত্র : সৌদি গেজেট

বিশ্বের প্রথম মুসলিম দেশের ‘মঙ্গলযাত্রা’

দীর্ঘ দিনের ক্ষণ গণনা শেষে গত বুধবার সকালে মঙ্গল গ্রহের উদ্দেশে রওনা হওয়ার কথা ছিলো সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রথম নভোযান। কিন্তু বাধ সাধল খারাপ আবহাওয়া। তাই আপাতত থেমে গেল মুসলিম বিশ্বের প্রথম কোনো দেশের মঙ্গল অভিযান।

জাপানের তেনেগাশিমার স্পেস সেন্টারে খারাপ আবহাওয়ার কারণে ‘হোপ প্রোব’ নামের নভোযানটির উড্ডয়ন স্থগিত করা হয় বলে জানিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত কর্তৃপক্ষ। উড্ডয়নের পরবর্তী তারিখ ঠিক করা হয়েছে আগামি শুক্রবার রাতে।

দেশটির সরকারের টুইটারে বলা হয়েছে, ‘আবহাওয়ার কারণে ইউএই স্পেস এজেন্সি ও মোহাম্মদ বিন রশিদ স্পেস সেন্টার জাপানের মিতসুবিশি হেভি ইন্ডাস্ট্রিজের সঙ্গে মিলে আমিরাতের মঙ্গল মিশন ‘হোপ প্রোব’ উড্ডয়ন দেরির ঘোষণা দিয়েছে।’

জাপানের তানেগাশিমা স্পেস সেন্টার থেকে বুধবার স্থানীয় ভোর ৫টা ৫১ মিনিটে নভোযানটি উড্ডয়নের সময় ঠিক করা হয়েছিল। বলা হয়েছিল উড্ডয়নের পর আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে এটি মঙ্গলের কক্ষপথে পৌঁছাবে।

এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ও ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি মঙ্গল গ্রহের কক্ষপথে সফল মিশন সম্পন্ন করতে পেরেছে। আরব আমিরাত সফল হলে এই তালিকায় নাম লেখানো প্রথম মুসলিম দেশ হবে তারা।

হোপ প্রবের উদ্দেশ্য মঙ্গল গ্রহের আবহাওয়ার গতিপ্রকৃতির বিস্তারিত ছবি পাঠানো এবং বৈজ্ঞানিক উদ্ভাবনের পথ বের করা। এই অভিযানকে আগামী ১০০ বছরের মধ্যে মঙ্গল গ্রহে মানববসতি স্থাপনে যে লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে, সেই বিশাল লক্ষ্যের সূচনা হিসেবে দেখা হচ্ছে।

মঙ্গলের শহর কেমন হতে পারে, তা নিয়ে কাল্পনিক কাঠামো তৈরিতে স্থপতিদের ভাড়া করেছে আমিরাত। স্থপতিরা এর মরুভূমিতে নির্মিতব্য ‘সায়েন্স সিটির’ নকশাও তৈরি করবেন। দুবাই এ জন্য প্রায় ৫০ কোটি দিরহাম ব্যয় করেছে।

ইরান- চীনের চুক্তিতে ক্ষতিগ্রস্ত ভারত, খুশি পাকিস্তান

ভারতের সাথে চুক্তি বাতিল করেছে ইরান। এতে আর্থিকভাবে বড় অংকের ক্ষতির মুখে পড়বে ভারত। তবে ইরান নতুন করে দীর্ঘ মেয়াদী চুক্তি করেছে চীনের সাথে। আর এ ঘটনায় বেজায় খুশি চীনের অন্যতম বন্ধু দেশ পাকিস্তান।

ইরানের চাবাহার বন্দর থেকে জেহেদান পর্যন্ত একটি রেলপথ তৈরির প্রকল্পের অংশিদার ছিল ভারত। ইরানের এই প্রকল্প হাতছাড়া হয় ভারতের। এই কাজ পেয়ে গেছে চীন। বলা হচ্ছে এই বড় ধাক্কা দিয়ে ভারতের বাণিজ্য খাতে কোণঠাসা করার পথে এগিয়ে গেল চীন।

ইরানের পরম শত্রু আমেরিকার সঙ্গে ভারতের সখ্যতা বাড়ার পাশাপাশি চীনের সংঘাত বেড়েছে। এদিকে ইরানের তেল আমদানিও বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। আর তাই চীনের দিকেই ঝুঁকে গেছে ইরান। তবে এতে দারুণ খুশি পাকিস্তান।

এ সমঝোতায় পাকিস্তানের খুশি হওয়ার কারণ হিসেবে দেখা হচ্ছে, ইরান শিয়া প্রধান দেশ হওয়ায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বেলুচিস্তানের স্বাধীনতাকামীদের সাহায্য করে ও লুকাতে দেয়। তবে চীনের সঙ্গে এই সমঝোতার ফলে এবার ইরানকে বালোচ নেতাদের সাহায্য বন্ধ করতে হবে। কারণ বেলুচিস্তানে চীনের সিপেক প্রকল্পগুলির বিরোধিতা করে বেলুচরা। আর বেলুচদের দমাতে পারলে স্বস্তিতে থাকবে ইমরানের প্রশাসন।

ইরানের দিল্লি বিরোধী সুর বাজতে শুরু করেছে ২০২০ সালের প্রথম ভাগ থেকেই। তখন দিল্লিতে মুসলিম অত্যাচার শুরু হয়। সিএএ নিয়ে ও দিল্লি হিংসা নিয়ে মুখ খুলেছিল ইরান। কার্যত সেই সময় ভারতের পরিস্থিতিকে খুব একটা ভালোভাবে নেয়নি সেদেশ। সমালোচনার সুরে এদেশে মুসলিমদের পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন তোলে ইরান।

পাক-অধিকৃত কাশ্মীরের গিলগিট-বাল্টিস্তান অঞ্চলে চীন-পাকিস্তান ইকনমিক করিডোরের রাস্তা আরও মসৃণ করার চিন্তা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলো। ৩২১৮ কিলোমিটার লম্বা এই করিডোর আসলে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের ‘ড্রিম প্রোজেক্ট’। আর ইরানের সঙ্গে চীনের নয়া চুক্তিতে এই প্রোজেক্টের দাম আরও বেড়ে গেল।

ভারতকে সরিয়ে ইরানের সঙ্গে চীনের ২৫ বছরের এ স্বাক্ষরিত চুক্তির মূল্য ৪০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ভারতের বাণিজ্যের জন্য খুব একটা সুখের বার্তা নয়। বিশেষজ্ঞদের মত, এ বাণিজ্য চুক্তির মাধ্যমে ভারতকে আরও বেশি করে ঘিরে ধরল চীন।

আরো পড়ুন-বিশ্ববিদ্যালয়ে কোরআনের অনুবাদ পড়ানোর প্রস্তাব পাস করল পাকিস্তান

দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয় পবিত্র কোরআনের অনুবাদ শিক্ষাদানের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে পাকিস্তানের জাতীয় সংসদ।

সোমবার দেশটির সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আলী মোহাম্মদ খানের উত্থাপিত প্রস্তাবট সর্বসম্মতিক্রমে পাস হয় বলে জিয়ো নিউজ উর্দূর খবরে বলা হয়েছে।

স্পিকার আসাদ কায়সারের সভাপতিত্বে চলা জাতীয় পরিষদের অধিবেশনে তিনি এ প্রস্তাবনা পেশ করেন।

এতে বলা হয়, কোরআনের উর্দূ অনুবাদ পাঠদানের মাধ্যমে আমাদের প্রজন্মের সামনে জ্ঞানের এক নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হবে। এ জন্য যেসব প্রদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অনুবাদসহ কোরআন পড়ানো হয় না সেসব বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থসহ কোরআন পড়ানো উচিত।

পরে সংসদ বিষয়কমন্ত্রীর উত্থাপিত প্রস্তাবটি সংসদে সর্বসম্মতভাবে পাস হয়।

সম্প্রতি পাকিস্তানের সর্বাধিক জনবহুল প্রদেশ পাঞ্জাবের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অনুবাদসহ পবিত্র কোরআন শিক্ষার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল।

জিয়ো নিউজ জানিয়েছে, ওই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ডিগ্রি অর্জনের জন্য অনুবাদসহ কোরআন অধ্যায়ন একটি অপরিহার্য শর্ত।

আরো পড়ুন-এবার আল-আকসা উদ্ধারের ঘোষণা এরদোগানের

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান আয়া সোফিয়াকে আবারো মসজিদে পরিণত করার পর এবার ইসরাইলের কাছ থেকে “আল-আকসা মসজিদকে মুক্ত করার” প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

গত শুক্রবার তিনি এ ঘোষণা দিয়েছেন বলে জানিয়েছে দ্য জেরুসালেম পোস্ট।

গীর্জা থাকার পর আয়া সোফিয়াকে ১৪৫৩ সালে মসজিদে রুপান্তরিত করেন উসমানিয় সুলতান মেহমুদ আল ফাতিহ। পরে ১৯৩৪ সালে তা যাদুঘরে রূপান্তরিত হয়েছিল। আয়া সোফিয়াকে আবারো মসজিদে রুপান্তরের ঘোষণা দেয়া হয়।

আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পরিণত করার ঘোষণার পর আল-আকসা মসজিদকে মুক্ত করার বার্তা দেয়া হয়েছে তুর্কি প্রেসিডেন্টের ওয়েবসাইটে।

বলা হয়েছে, আয়া সোফিয়ার পুনরুত্থান হলো বিশ্বজুড়ে মুসলমানদের আবারো কতৃত্বের প্রথম পদক্ষেপ…আয়া সোফিয়ার এই উত্থান নিপীড়িত, শোষিত মুসলমানদের আশার আলো।

ভাষণটির আরবি অংশে বলা হয়েছে, আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পরিণত করা আল-আকসা মুক্তির অংশ। জেরুজালেমের পুরানো শহর যেখানে আল-আকসা মসজিদ রয়েছে তা নিয়ন্ত্রণ থেকে ইসরাইলকে বিতাড়িত করার ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে।

এরদোগান ইসরাইলের চরম সমালোচক হিসেবেই পরিচিত।