স্বাধীনতার আগ পর্যন্ত কাশ্মীরীদের পাশে থাকার ঘোষণা দিলেন ইমরান খান

স্বাধীনতা পাওয়ার আগ পর্যন্ত ভারত দখলকৃত কাশ্মীমীদের সংগ্রামকে সমর্থন দিয়ে পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

তিনি বলেন, স্বাধীনতা কাশ্মীরীদের গণঅধিকার। এই গণঅধিকার আদায়ে শুরু থেকেই পাকিস্তান কাশ্মীরীদের স্বাধীনতা আন্দোলনের পক্ষে থেকেছে এবং ভারতের বিরুদ্ধে বিজয় অর্জন করার আগ পর্যন্ত তাদের এই মহান সংগ্রামকে আমাদের সরকার সমর্থন করে যাবে।

সোমবার (১৩ জুলাই) কাশ্মীর শহীদ দিবস উপলক্ষে দেওয়া এক বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

কাশ্মীরের স্বাধীনতা সংগ্রামকে মোবারকবাদ জানিয়ে ইমরান খান বলেন, কাশ্মীরের স্বাধীনতার স্মরণীয় দিন খুব বেশি দূরে নয়। স্বাধীনতার জন্য তাদের পূর্বপুরুষরা প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে নিজেদের জীবন উৎসর্গ করে এসেছেন। আজ তারা ভারতের আধিপত্যের বিরুদ্ধে যে লড়াই করছে তা ১৯৩১ সনে শুরু হওয়া স্বাধীনতা সংগ্রামেরই অংশ এবং তারই ধারাবাহিকতা।

উল্লেখ্য, সর্বদলীয় হুররিয়াত কনফারেন্সের আবেদনে গত সোমবার দখলকৃত কাশ্মীরে শহীদ দিবস পালিত হচ্ছে এবং পুরো অঞ্চলজুড়ে ধর্মঘট পালিত হচ্ছে।

১৯৩১ সনের ১৩ জুলাই ২২জন স্বাধীনতাকামী কাশ্মীরীকে শহীদ করেছিল হানাদার ডোগরা বাহিনী।

ডোগরা রাজের অনৈতিক নিয়ম নীতির বিরোধিতার মাধ্যমে শুরু হয়েছিল কাশ্মীরীদের স্বাধীনতা আন্দোলন। পরবর্তীতে তাদের স্বাধীনতা আন্দোলনে নেতৃত্ব দানকারী সংগ্রামী নেতা আব্দুল কাদির খান গাজীর বিরুদ্ধে মামলা ও গ্রেফতারকে কেন্দ্র করে প্রতিবাদ জানাতে গেলে তাদের শহীদ করা হয়। ১৯৩১সাল থেকেই প্রতি বছরের ১৩ জুলাই কাশ্মীর শহীদ দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

সূত্র: ডেইলি পাকিস্তান অনলাইন

আরো পড়ুন-বিশ্ববিদ্যালয়ে কোরআনের অনুবাদ পড়ানোর প্রস্তাব পাস করল পাকিস্তান

দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয় পবিত্র কোরআনের অনুবাদ শিক্ষাদানের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে পাকিস্তানের জাতীয় সংসদ।

সোমবার দেশটির সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আলী মোহাম্মদ খানের উত্থাপিত প্রস্তাবট সর্বসম্মতিক্রমে পাস হয় বলে জিয়ো নিউজ উর্দূর খবরে বলা হয়েছে।

স্পিকার আসাদ কায়সারের সভাপতিত্বে চলা জাতীয় পরিষদের অধিবেশনে তিনি এ প্রস্তাবনা পেশ করেন।

এতে বলা হয়, কোরআনের উর্দূ অনুবাদ পাঠদানের মাধ্যমে আমাদের প্রজন্মের সামনে জ্ঞানের এক নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হবে। এ জন্য যেসব প্রদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অনুবাদসহ কোরআন পড়ানো হয় না সেসব বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থসহ কোরআন পড়ানো উচিত।

পরে সংসদ বিষয়কমন্ত্রীর উত্থাপিত প্রস্তাবটি সংসদে সর্বসম্মতভাবে পাস হয়।

সম্প্রতি পাকিস্তানের সর্বাধিক জনবহুল প্রদেশ পাঞ্জাবের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অনুবাদসহ পবিত্র কোরআন শিক্ষার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল।

জিয়ো নিউজ জানিয়েছে, ওই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ডিগ্রি অর্জনের জন্য অনুবাদসহ কোরআন অধ্যায়ন একটি অপরিহার্য শর্ত।

আরো পড়ুন-এবার আল-আকসা উদ্ধারের ঘোষণা এরদোগানের

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান আয়া সোফিয়াকে আবারো মসজিদে পরিণত করার পর এবার ইসরাইলের কাছ থেকে “আল-আকসা মসজিদকে মুক্ত করার” প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

গত শুক্রবার তিনি এ ঘোষণা দিয়েছেন বলে জানিয়েছে দ্য জেরুসালেম পোস্ট।

গীর্জা থাকার পর আয়া সোফিয়াকে ১৪৫৩ সালে মসজিদে রুপান্তরিত করেন উসমানিয় সুলতান মেহমুদ আল ফাতিহ। পরে ১৯৩৪ সালে তা যাদুঘরে রূপান্তরিত হয়েছিল। আয়া সোফিয়াকে আবারো মসজিদে রুপান্তরের ঘোষণা দেয়া হয়।

আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পরিণত করার ঘোষণার পর আল-আকসা মসজিদকে মুক্ত করার বার্তা দেয়া হয়েছে তুর্কি প্রেসিডেন্টের ওয়েবসাইটে।

বলা হয়েছে, আয়া সোফিয়ার পুনরুত্থান হলো বিশ্বজুড়ে মুসলমানদের আবারো কতৃত্বের প্রথম পদক্ষেপ…আয়া সোফিয়ার এই উত্থান নিপীড়িত, শোষিত মুসলমানদের আশার আলো।

ভাষণটির আরবি অংশে বলা হয়েছে, আয়া সোফিয়াকে মসজিদে পরিণত করা আল-আকসা মুক্তির অংশ। জেরুজালেমের পুরানো শহর যেখানে আল-আকসা মসজিদ রয়েছে তা নিয়ন্ত্রণ থেকে ইসরাইলকে বিতাড়িত করার ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে।

এরদোগান ইসরাইলের চরম সমালোচক হিসেবেই পরিচিত।