হেবরন দখলের প্রতিবাদ করায় ফিলিস্তিনি যুবককে গুরুতর আহত করলো ইসরাইল

পশ্চিম তীর দখলের প্রতিবাদে সংঘর্ষ চলাকালীন টিয়ারগ্যাস ছুড়ে এক ফিলিস্তিনী যুবককে গুরুতর জখম করলো ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরায়েলী সৈন্যরা।

রবিবার (৫জুলাই) ফিলিস্তিনের পশ্চিত তীরের হেবরন শহরের প্রাণকেন্দ্র শুহাদা স্ট্রীটে এ নির্মম ঘটনা ঘটে।

ডাব্লিউএএএফএর তথ্যমতে, হেবরন ওল্ড সিটি কোয়ার্টারে ইহুদিবাদী ইসরাইলী বাহিনীর অবৈধ দখলের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে ফিলিস্তিনীরা।

সেসময় ফিলিস্তিনীদের লক্ষ্য করে রাবার বুলেট,স্টান গ্রেনেড ও টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করে ইসরায়েল। ফলে টিয়ারগ্যাসের শেল সরাসরি একজন ফিলিস্তিনি যুবকের মুখে গিয়ে পড়াতে গুরুতর আহত হন তিনি।

উল্লেখ্য, ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল কর্তৃক দখলকৃত ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরের আরো কিছু অংশ নতুন করে দখলের পরিকল্পনার বিরুদ্ধে গত দুদিন যাবত ব্যাপকভাবে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে আসছেন ফিলিস্তিনীরা।

এর ফলে পশ্চিম তীরসহ ফিলিস্তিনের বিভিন্ন অংশে;এমনকি হেবরন ওল্ড সিটিতেও ইহুদিবাদী ইসরাইলের দখলদার বাহিনীর সাথে তাদের দফায় দফায় সংঘর্ষ বাঁধে।

মাঝ আকাশে ২ বিমানের মুখোমুখি সংঘর্ষ, বেঁচে নেই কেউই

যুক্তরাষ্ট্রে মাঝ আকাশে মুখোমুখি সংঘর্ষের পর উত্তর ইডাহো এলাকার একটি লেকের ওপর ভেঙে পড়েছে দুটি বিমান।

ধারণা করা হচ্ছে, দুর্ঘটনায় বিমান দুটি থাকা ৮ জন আরোহীই নিহত হয়েছেন।

বার্তা সংস্থা সিএনএন জানায়, রোববার স্থানীয় সময় দুপুর আড়াইটার দিকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রশান্ত মহাসাগর উত্তর পশ্চিম অঞ্চলে অবস্থিত কোউর ডি’এলিন লেকে বিমান দুটি ভেঙে পড়ে।

পানিতে ডুবে যাওয়ার আগে দুজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এখনও ৬ জন নিখোঁজ রয়েছন। লেকের পানিতে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। তবে যেভাবে দুর্ঘটনা ঘটেছে, তাতে স্থানীয় প্রশাসনের আশঙ্কা, দুই বিমানের কেউই বেঁচে নেই।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, দুর্ঘটনার আগে মাটি থেকে প্রায় ৮০০ ফুট ওপরে উড়ছিল দুটি বিমান। হঠাৎ মুখোমুখি সংঘর্ষে একটি বিমানের কেবিনের ভেতরে ঢুকে যায় আরেকটির ডানা। ধাক্কা খেয়ে বিমান দুটি সোজা লেকের পানিতে ডুবে যায়।