পাকিস্তান সেনাদের জন্য হাসপাতাল ও রক্ত মজুত রাখতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে সেনাপ্রধানের চিঠি

ভারতের সঙ্গে উত্তেজনায় পাকিস্তান সেনাদের জন্য হাসপাতাল ও রক্ত সংরক্ষণের চিঠি
লাদাখে চীন ও ভারতের মধ্যে সংঘাতের মধ্যেই ভারত নিয়ন্ত্রিত গেল এক সপ্তাহে অন্তত ১০ জনের প্রাণহানী ঘটেছে। এমন পরিস্থিতি পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে সংঘাত সৃষ্টির শঙ্কা দেখা দিয়েছে। লাদাখে জমা হওয়া ভারতের ক্ষোভ কাশ্মীরে প্রকাশ পেতে পারে আশঙ্কা।

এজন্য বড়সড় প্রস্তুতি নিচ্ছে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। দেশটির সেনা প্রধান জেনারেল কমর জাভেদ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাঠে একটি চিঠি পাঠিয়ে সেনাবাহিনীর সদস্যদের জন্য হাসপাতালে ৫০ শতাংশ বেড সংরক্ষিত রাখার অনুরোধ করেছেন

ভারতীয় সংবাদমধ্যম জি নিউজের খবরে বলা হয়েছে, চিঠিতে বাজওয়া স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা মুহাম্মদ নাজিব নাকি খানকে লিখেছেন, ‘আজাদ কাশ্মীরের সব হাসপাতালে পাক সেনাদের জন্য ৫০ শতাংশ বেড সংরক্ষিত রাখুন। রক্তের ব্যবস্থা করুন। যে কোনও জরুরি পরিস্থিতিতে তার প্রয়োজন হতে পারে।’

chin-india-hospitalচীনকে টপকে ২২টি স্টেডিয়ামের সমান হাসপাতাল বানালো ভারত এদিকে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে গেল কয়েক সপ্তাহ ধরে চরম উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে। গোয়েন্দা রিপোর্টের বরাতে দেশটির সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হচ্ছে,

কাশ্মীরে এখনো আত্মগোপন করে আছে বেশ কিছু অস্ত্রধারী। সেই সাথে যুবসমাজকে নিজেদের দলে টানতে চাইছে পাক মদদপুস্ট জঙ্গিগোষ্ঠী। এর জের ধরেই ২০০ যুবকের নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তাদের সবার পাকিস্তানের ভিসা রয়েছে বলে খবরে উল্লেখ করা হয়েছে।

গোয়েন্দা সূত্র বলছে, একাধিকবার পরিকল্পনা ব্যর্থ হলেও যুবসমাজকে বাগে আনতে মরিয়া হয়ে লেগেছে জঙ্গি গোষ্ঠীগুলো। সে প্রেক্ষিতে ২০০ জনের নিখোঁজ হওয়া নতুন আশঙ্কার বার্তা তৈরি করেছে।

chineচীনে নতুন করে ছড়াচ্ছে করোনা
গোয়েন্দাদের দাবি নিখোঁজ হয়ে যাওয়া যুবকদের ব্যবহার করে জম্মু কাশ্মীরে সন্ত্রাসী কার্যকলাপ জোরদার করতে জঙ্গিরা। ঘটনার জের ধরে এরই মধ্যে ভারতীয় সেনাবাহিনীকে সতর্ক করা হয়েছে।

ভারতে মেড ইন ইন্ডিয়া ব্যানারে শাওমি ফোন বিক্রি

লাদাখে চীনা সেনার সঙ্গে সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনার মৃত্যুর পর থেকেই উত্তেজনা বিরাজ করছে গোটা দেশে। চীনা পণ্য বয়কটের ডাক দিয়ে চলছে তুমুল বিক্ষোভ।

এই পরিস্থিতিতে চীনা ব্র্যান্ড শাওমি অভিনব কৌশল নিয়েছে। বিভিন্ন ফ্রাঞ্চাইজি এমআই স্টোরের সামনে বিশাল আকারে ‘মেড ইন ইন্ডিয়া’ ব্যানার ঝুলিয়ে দিয়েছে সংস্থাটি। চীনা পণ্য বয়কটের ডাককে মোকাবেলা করতেই তারা এই পদক্ষেপ নিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

ভারতের স্মার্টফোন বাজারে আধিপত্য ধরে রাখতে মরিয়া শাওমি। ভারতের বিভিন্ন শহরে তাদের স্টোর ও আউটলেট রয়েছে। সেখানে ব্র্যান্ডের নামের উপর ব্যানার ঝুলিয়ে তার উপর সাদা রংয়ে ‘মেড ইন ইন্ডিয়া’ লেখা হয়েছে।

যেটা শাওমির ব্র্যান্ড লোগোর রংয়ের মতোই। বৃহস্পতিবার শাওমি ইন্ডিয়ার স্থানীয় ব্যবস্থাপনা পরিচালক মানু কুমার জৈন টুইট বার্তায় বলেন, ‘অত্যন্ত গর্বের সঙ্গে জানাতে চাই, আমাদের তৈরি অধিকাংশ টিভি ভারতেই বানানো হয়েছে। গোটা ভারতে ছড়িয়ে থাকা কারখানায় আমরা হাজার হাজার মানুষকে কাজের ব্যবস্থা করেছি।’

ভারতের বাজারে স্থানীয় স্মার্টফোনের চেয়ে শাওমির দখল অনেক বেশি, প্রায় ৩১.২ শতাংশ। চীনা প্রতিষ্ঠানটি তাদের বেশিরভাগ স্মার্টফোন ও টিভি ভারতেই তৈরি করে বলে দাবি রয়েছে। এমনকী এসব প্রযুক্তি পণ্য উৎপাদনে যেসব মূল উপাদান প্রয়োজন হয়, তার ৬৫ শতাংশও স্থানীয়ভাবে সরবরাহ করা হয়। ফলে ভারতের হ্যান্ডসেটের বাজারে তাদের আধিপত্য আছে। এছাড়া প্রতিষ্ঠানটি প্রায় ৫০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করেছে বলেও দাবি।

তবে সংস্থার এই পদক্ষেপ নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। কেউ কেউ মনে করেন, চিনা পণ্য পুরোপুরি বয়কট করা দরকার। আবার কারও মতে, এই দাবি অযৌক্তিক। কারণ, অধিকাংশ বৈদ্যুতিক পণ্যের কাঁচামাল ও যন্ত্রাংশ চীন থেকেই আসে।