ব্রিটেনে করোনা জয় করে ফের মানব সেবায় নামলেন বাংলাদেশী নার্স!

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে গিয়েই প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ব্রিটেনের হাসপাতালে কর্মরত বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নার্স ইজমি আহমেদ। তবে করোনা যুদ্ধে জয়ী হয়ে ফের আক্রান্ত রোগীদের সেবায় দিতে কাজে যোগ দিয়েছেন তিনি।

করোনা মহামারির প্রথম থেকেই তিনি যুক্তরাজ্যের বার্মিংহামের হার্টল্যান্ড হাসপাতালের নার্স হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

ইজমি আহমেদ বার্মিংহামের কমিউনিটি নেতা ও সিলেট জেলার গোপালগঞ্জ উপজেলার ভাদেশ্বর ইউনিয়নের বাসিন্দা লিটু আহমেদ জুম্মার মেয়ে।

তিনি করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর ডাক্তারের পরামর্শে পুরো পরিবার হোম কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন। দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকার পর করোনা জয় করে তিনি ফের নেমে পড়েন মানব সেবায়।

এদিকে ব্রিটেনে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা আবারও কিছুটা কমের দিকে থাকলেও বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে ৩৮৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার ছিল ৪২৪, বুধবার ছিল ৪৯৪ জন। এখন পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা ৩৩ হাজার ৯৯৮ জন।

এদিকে দেশটির ডিপার্টমেন্ট অব হেলথ অ্যান্ড সোশ্যাল কেয়ার জানিয়েছে, করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৫৬০ জন। বৃহস্পতিবার আক্রান্ত হয়েছিল হয়েছেন ৩ হাজার ৪৪৬ জন, বুধবার আক্রান্ত হয়েছিল ৩ হাজার ২৪২জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৩৬ হাজার ৭১১ জন।

সুত্র: বিয়ানীবাজার বিউজ২৪

লাদাখে উত্তেজনা, চীনের সেনা প্রস্তুতি ধরা পড়ল উপগ্রহ চিত্রে

ভারত-চীন সীমান্ত পর্বতমালা লাদাখের গলওয়ানে সোমবার রাতে দুই পক্ষের মল্লযুদ্ধের পর পরিস্থিতি থমথমে রয়েছে।

সীমান্ত থেকে দুই পক্ষের সেনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক চাপ থাকলেও গতকাল পর্যন্ত কোনো পক্ষই সেনা সরায়নি। তারা যুদ্ধের প্রস্তুতি নিয়ে অনড় অবস্থানে রয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে ভারতীয় সেনার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, সংঘর্ষের পরে ভারত এবং চীন দু’পক্ষই পিছু হটছে তাঁদের অবস্থান থেকেi

সামরিক পরিভাষায় যাকে বলা হয় ডিসএনগেজমেন্ট। দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যেও কথাবার্তা হয়েছে বুধবার।

কূটনৈতিক এবং সেনা, দুই পর্যায়েই আলোচনা চলবে বলে জানাচ্ছে দুই দেশ। কিন্তু এর মধ্যেও, লাদাখের সেই গলওয়ান উপত্যকায় মঙ্গলবারের একটি উপগ্রহ চিত্রে ধরা পড়ল বড়সড় সেনা প্রস্তুতির ছবি।

মার্কিন সংস্থা প্ল্যানেট ল্যাব প্রকাশিত ওই উপগ্রহ চিত্রে দেখা যাচ্ছে, গলওয়ান নদীর উত্তর-পূর্ব দিকের উপত্যকায় সঙ্কীর্ণ গিরিসঙ্কট।

তার উপর, নিয়ন্ত্রণ রেখার সমান্তরাল চীনের তৈরি অ্যাসফল্ট রোডে সারি সারি সামরিক ট্রাক। উপগ্রহ চিত্র দেখে আপাত ভাবে সেই ট্রাকের সংখ্যা ২০০’র কম নয় বলেই মনে করছেন সমর বিশেষজ্ঞরা।

যেভাবে চীনা সামরিক ট্রাক দাঁড়িয়ে রয়েছে, তাতে পিছু হটার ইঙ্গিত নেই, বরং সেনা সমাবেশের প্রমাণ স্পষ্ট। নদীর অন্য পারেও দেখা যাচ্ছে বিচ্ছিন্ন এবং বিক্ষিপ্ত সেনা সমাবেশ।

বিশেষজ্ঞদের দাবি, ওই সেনা সম্ভার ভারতের দিক থেকে পাল্টা প্রস্তুতি। উল্লেখ্য, মে মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা (এলএসি) ধরে পূর্ব লাদাখে উত্তেজনা তৈরি হয়ে রয়েছে।

সোমবারের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আগেও ৫ মে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে অনুপ্রবেশের অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে হাতাহাতি হয়েছে দুই সেনার মধ্যে। জানা যায়, এরপর থেকে গত এক মাস ধরে উত্তেজনা বেড়েই চলেছে এলএসি’র দু’পারে। দু’দিকেই চলছে প্রস্তুতি, সেনা সমাবেশ।

সেই উত্তেজনা প্রশমনে বেশ কয়েক দফা বৈঠক হয়েছে দুইপক্ষে। এমনকি সেই বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সোমবার থেকেই উত্তেজনা প্রশমন করতে পিছিয়ে আসার কথা ছিল দু’পক্ষের সেনারই। কিন্তু তার মধ্যেই সোমবার রাতে গলওয়ান নদীর তীরে শুরু হয়ে যায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ।