মুসলমানদের নামাজের জন্য জার্মানিতে খুলে দেয়া হলো গির্জা

মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার নতুন নিয়ম মেনে মসজিদে নামাজ আদায় করা সম্ভব না হওয়ায়, জার্মানির বার্লিনে একটি গির্জা খুলে দেয়া হয়েছে মুসলমানদের প্রার্থনার জন্য।

জার্মানিতে গত ৪ মে থেকে সকল ধর্মীয় উপাসনালয় পুনরায় খুলে দেয়ার অনুমতি দেয়া হলেও প্রার্থণার সময় একে অপরের থেকে ৫ ফুট দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়।

এ দূরত্ব মেনে বার্লিনের নিউক্লান জেলার দার আসসালাম মসজিদে কেবলমাত্র জামাতের এক অংশ ধরানো সম্ভব ছিল। কিন্তু ক্রুজবার্গের মার্থা লুথেরান গির্জা রমজানের শেষ জুমার নামাজের আয়োজন করে সাহায্য করার প্রস্তাব দেয়।

দার আসসালাম মসজিদের ইমাম রয়টার্সকে বলেন, ‘এটি একটি দুর্দান্ত বিষয়। এ সঙ্কটের মধ্যে এবং রমজানে এটি সবার মাঝে আনন্দ নিয়ে এসেছে। এই মহামারি আমাদেরকে একটি সামাজিক বন্ধনে আবদ্ধ করেছে। সংকট মানুষকে একত্রিত করে তোলে।’

মসজিদ কমিটির সদস্য সামির হামদৌন বলেন, এটি এক অদ্ভূত অনুভূতি ছিল কারণ সেখানে বাদ্যযন্ত্র, বিভিন্ন ছবি ছিল, যা ইসলামিক প্রার্থণার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। কিন্তু আপনি যদি দেখেন এবং ছোট ছোট বিষয় ভুলে যান, তাহলে শেষ পর্যন্ত এটি সৃষ্টিকর্তার ঘর।

কুদস দিবস উপলক্ষ্যে পাকিস্তানের করাচিতে নৌ-জাহাজে ফিলিস্তিনি পতাকা প্রদর্শন

কুদস দিবস উপলক্ষ্যে করাচিতে নৌ-জাহাজে ফিলিস্তিনি পতাকা প্রদর্শন করা হয়েছে। আজ শুক্রবার পাকিস্তানের বন্দরনগরী করাচিতে ফিলিস্তিনি পতাকাবাহী জাহাজের প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়।

দিনটি উপলক্ষ্যে বিশ্বব্যাপী ফিলিস্তিনি পতাকা উত্তোলনের যে অভাবনীয় উদ্যোগ নেয়া হয়েছে তার প্রতি সমর্থন জানিয়ে পাকিস্তানের ইমামিয়া স্টুডেন্টস অর্গানাইজেশন এই ব্যতিক্রমী কর্মসূচি গ্রহণ করে।

ইসলামীম প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রতিষ্ঠাতা ইমাম খোমেনী রহ. রমজান মাসের শেষ শুক্রবারকে বিশ্ব কুদস দিবস হিসেবে পালনের আহ্বান জানিয়েছিলেন এবং তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে ১৯৭৯ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী এ দিবস পালন হয়ে আসছে।

ইহুদিবাদীদের কবল থেকে মুসলমানদের প্রথম ক্বেবলার শহর আল-কুদস বা বায়তুল মুকাদ্দাসকে মুক্ত করার মহান লক্ষ্যে এ দিবস পালন করার আহ্বান জানান ইমাম খোমেনী। প্রতি বছর ইরানসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কুদস দিবসে ব্যাপক ইসরাইল বিরোধী বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।

তবে চলতি বছর বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিধিবিধান পালন করার কারণে বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে কুদস দিবসের বিক্ষোভ মিছিল করা সম্ভব হবে না। এ অবস্থায় লন্ডনের ইসলামি মানবাধিকার পরিষদের উদ্যোগে ব্রিটেনের মুসলমানরা একটি অভাবনীয় উদ্যোগ নিয়েছেন।

ওই পরিষদ ফিলিস্তিনি জাতির স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ফিলিস্তিনি পতাকা উত্তোলনের আহ্বান জানিয়েছে। আর এ আহ্বানে সাড়া দিয়ে পাকিস্তানের ছাত্ররা বেশকিছু জাহাজে ফিলিস্তিনি পতাকা নিয়ে তাদের মাতৃভূমি পুনরুদ্ধার ও মুসলমানদের প্রথম কেবলা আল-কুদস মুক্তি আন্দোলনের প্রতি তাদের সমর্থন জানান।

এছাড়ও গত ১৭ মে এক বিবৃতিতে জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক কাউন্সিলের সহযোগী সংস্থা ‘ইসলামী মানবাধিকার কমিশন’ (আইএইচআরসি) এক বিজ্ঞপ্তিতে কুদস দিবস পালনে বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।