কুদস দিবস উপলক্ষ্যে পাকিস্তানের করাচিতে নৌ-জাহাজে ফিলিস্তিনি পতাকা প্রদর্শন

কুদস দিবস উপলক্ষ্যে পাকিস্তানের করাচিতে নৌ-জাহাজে ফিলিস্তিনি পতাকা প্রদর্শন

কুদস দিবস উপলক্ষ্যে করাচিতে নৌ-জাহাজে ফিলিস্তিনি পতাকা প্রদর্শন করা হয়েছে। আজ শুক্রবার পাকিস্তানের বন্দরনগরী করাচিতে ফিলিস্তিনি পতাকাবাহী জাহাজের প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়।

দিনটি উপলক্ষ্যে বিশ্বব্যাপী ফিলিস্তিনি পতাকা উত্তোলনের যে অভাবনীয় উদ্যোগ নেয়া হয়েছে তার প্রতি সমর্থন জানিয়ে পাকিস্তানের ইমামিয়া স্টুডেন্টস অর্গানাইজেশন এই ব্যতিক্রমী কর্মসূচি গ্রহণ করে।

ইসলামীম প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রতিষ্ঠাতা ইমাম খোমেনী রহ. রমজান মাসের শেষ শুক্রবারকে বিশ্ব কুদস দিবস হিসেবে পালনের আহ্বান জানিয়েছিলেন এবং তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে ১৯৭৯ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী এ দিবস পালন হয়ে আসছে।

ইহুদিবাদীদের কবল থেকে মুসলমানদের প্রথম ক্বেবলার শহর আল-কুদস বা বায়তুল মুকাদ্দাসকে মুক্ত করার মহান লক্ষ্যে এ দিবস পালন করার আহ্বান জানান ইমাম খোমেনী। প্রতি বছর ইরানসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কুদস দিবসে ব্যাপক ইসরাইল বিরোধী বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।

তবে চলতি বছর বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিধিবিধান পালন করার কারণে বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে কুদস দিবসের বিক্ষোভ মিছিল করা সম্ভব হবে না। এ অবস্থায় লন্ডনের ইসলামি মানবাধিকার পরিষদের উদ্যোগে ব্রিটেনের মুসলমানরা একটি অভাবনীয় উদ্যোগ নিয়েছেন।

ওই পরিষদ ফিলিস্তিনি জাতির স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ফিলিস্তিনি পতাকা উত্তোলনের আহ্বান জানিয়েছে। আর এ আহ্বানে সাড়া দিয়ে পাকিস্তানের ছাত্ররা বেশকিছু জাহাজে ফিলিস্তিনি পতাকা নিয়ে তাদের মাতৃভূমি পুনরুদ্ধার ও মুসলমানদের প্রথম কেবলা আল-কুদস মুক্তি আন্দোলনের প্রতি তাদের সমর্থন জানান।

এছাড়ও গত ১৭ মে এক বিবৃতিতে জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক কাউন্সিলের সহযোগী সংস্থা ‘ইসলামী মানবাধিকার কমিশন’ (আইএইচআরসি) এক বিজ্ঞপ্তিতে কুদস দিবস পালনে বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

করোনার ওষুধ তৈরি প্রকল্পে মুসলমান বিজ্ঞানীকে প্রধান করলেন ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনাভাইরাসের ওষুধ তৈরির প্রকল্পের প্রধান করেছেন একজন মুসলিম বিজ্ঞানীকে। ‘অপারেশন ওয়ার্প স্পিড’ নামক এ প্রকল্পের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে মরক্কো বংশোদ্ভূত মুসলিম আমেরিকা মুন্সেফ মোহাম্মদ স্লায়োইকে।

হোয়াইট হাউসে শুক্রবার বিকালে এ নিয়োগ ঘোষণাকালে স্লায়োইকে ‘উৎপাদনে এবং বস্তুত ভ্যাকসিন গঠনের ক্ষেত্রে বিশ্বের অন্যতম সম্মানিত পুরুষ’ হিসেবে বর্ণনা করেন ট্রাম্প।

ট্রাম্প বলেন, অপারেশন ওয়ার্প স্পিডের প্রধান বিজ্ঞানী হবেন ড. মুন্সেফ স্লায়োই। তিনি একজন বিশ্ববিখ্যাত রোগ প্রতিরোধ বিশেষজ্ঞ। তিনি প্রাইভেট সেক্টরে কাজ করার সময় ১০ বছরে ১৪টির মতো ওষুধ তৈরিতে সহায়তা করেছেন।

আরব নিউজের এক প্রতিবেদনে প্রকাশ, মার্কিন সেনাবাহিনীর ম্যাটারিয়াল কমান্ডের অধিনায়ক জেনারেল গুসতব পারনার নেতৃত্বাধীন একটি দলকে সহযোগিতা করবেন মুন্সেফ স্লায়োই। এ দলটি যত দ্রুত সম্ভব মারণভাইরাস করোনার ওষুধ তৈরিতে কাজ করছে।

এদিকে, বার্তা সংস্থা এপির খবরে প্রকাশ, ওই প্রকল্পে কাজের বিনিময়ে কোনো বেতন নেবেন না স্লায়োই।

স্লায়োইর পরিচয় সম্পর্কে জানা গেছে, তিনি ১৯৫৯ সালে মরক্কোর আগাদিরে জন্ম নেন। ১৭ বছর বয়সে তিনি দেশ ত্যাগ করেন।

গ্রাজুয়েশন লাভের পর বেলজিয়ামের ইউনিভার্সিটি লিবরে ডি ব্রুক্সেলেস থেকে আণবিক জীববিজ্ঞান ও রোগ প্রতিরোধ তত্ত্বের ওপর ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করেন।

এরপর হারভার্ড মেডিক্যাল স্কুল ও বোস্টনের টাফটস ইউনিভার্সিটি স্কুল অব মেডিসিন থেকে পোস্ট ডক্টরাল পড়াশোনা শেষ করেন।

তিনি ৩০ বছর বিশ্ববিখ্যাত গ্ল্যাক্সোস্মিথক্লিন (জিএসকে) কোম্পানির ওষুধ শাখার প্রধান ছিলেন।

রোগ-প্রতিরোধ বিদ্যার উপর তার ১০০টির বেশি প্রকাশনা রয়েছে।

২০১৫ সালে তিনি ম্যালেরিয়ার ভ্যাকসিন তৈরিতে বিশ্বে প্রথম ইউরোপিয়ান অনুমোদন পান।

ট্রাম্প অপারেশন ওয়ার্প স্পিডে তাকে নিযুক্তির আগে সর্বশেষ তিনি বাইয়োটেক কোম্পানি মডার্নার বোর্ড থেকে গত সপ্তাহে তিনি পদত্যাগ করেন।

তার নিয়োগকে ‘বিশেষ সম্মান’ হিসেবে উল্লেখ করে স্লায়োই বলেন, এর মাধ্যমে তিনি মহামারি মোকাবিলায় নিজ দেশ ও বিশ্বকে সেবা করার সুযোগ পেলেন।

সূত্র : সিয়াসাত ডেইলি