চীন চেয়েছিল কুরআনকে বদলাতে, কিন্তু আল্লাহ পুরো চীনকেই বদলে দিলো

এর দেড় মাস যেতে না যেতেই ভ’য়াভহ চীনকে দেখছে পুরো বিশ্ব। নতুন আ’তঙ্ক ‘করোনাভাইরাস’-এ প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে চীনের ৮১১ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে। আর দেশটিতে এ ভাইরাসে আ’ক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৩৭ হাজার ১৯৮ জন মানুষ।

এদিকে করোনাভাইরাসের থাবায় যেন অচল হয়ে যাচ্ছে চীন। দু’র্বিষহ পার করছে এক একটা দিন। একসময় গণপরিবহনে অনেক সময় যাত্রীরা না বুঝেই পরিচ্ছন্ন আসনে বসে পড়তো এবং পরে দেখা যেতো তার ট্রাউজার ধবধবে সাদা। এবার পরিস্থিতি ভিন্ন কারণ কর্তৃপক্ষ এক কোটিরও বেশি মানুষের শহরে গণপরিবহন বন্ধ করে দিয়েছে এবং লোকজনকে ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে।

ভ’য়ে-আ’তংকে বাতিল হয়ে যাচ্ছে বিয়ের তারিখ। খাবারের অভাবে কোনরকম দিন পার করছে মানুষজন। এক সুত্রে জানা যায়, যে চীনারা রেস্টুরেন্টে ফাস্টফুড খেয়ে দিন কাটাত আজ তাঁরা একবেলা একটা সিদ্ধ আপেল খেয়ে দিন পার করছে।

পবিত্র কুরআনকে সংস্করণের দেড় মাসের মাথায় চীনের এমন পরিস্থিতি দেখে মুসলমানদেরও সাবধান হওয়া উচিত, কুরআনের বিধান মেনে চলা উচিত। কারণ, “চীন চেয়েছিল পবিত্র কুরআনকে পরিবর্তন করতে, কিন্তু মহান আল্লাহ্‌ তাআলা পুরো চীনকেই পরিবর্তন করে দিলেন।

পবিত্র কুরআনে মহান আল্লাহ্‌ তাআলা বলেন, “আমি স্বয়ং কুরআন কে নাজিল করেছি এবং আমি নিজেই এর হেফাজতকারী”(সুরা হিজরঃ আয়াত ৯)