মোদির জয়ের আভাসে আতঙ্কিত ভারতের মুসলিমরা,বিশেষ প্রার্থনার আহ্বান বিশ্ব মুসলিমের কাছে!

বুথফেরত জরিপে হিন্দু জাতীয়তাবাদী দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) জয়ের আভাসে আতঙ্কিত হয়ে পড়ছেন ভারতের মুসলিমরা। এমতাবস্থায় অনুকূল ফলের জন্য অনুসারীদের বিশেষ প্রার্থনার আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির ঐতিহ্যবাহী ইসলামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল উলুম দেউবন্দ মাদ্রাসার মুফতি মেহমুদ হাসান বুলান্দশাহরি।

এই পরামর্শ মেনে চলতে দেউবন্দ শহরের অন্য আলেমরাও অনুরোধ জানিয়েছেন। ২০১৪ সালের নির্বাচনে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ধর্মনিরপেক্ষ জোটকে হারিয়ে ক্ষমতায় ফিরে কট্টরপন্থি দল বিজেপি। প্রধানমন্ত্রী হন নরেন্দ্র মোদি।

পাঁচ বছরের শাসনামলে দেশটিতে ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা নানামুখি নিপীড়নের মুখে পড়ে। গো-রক্ষার নামে পিটিয়ে হত্যা করা হয় অনেক মুসলিমকে। তাছাড়া মুসলিম শাসনামলের বিভিন্ন স্থাপত্য ধ্বংস, নাম পরিবর্তনসহ নানামুখি পদক্ষেপ নেয়া হয়।

এই অবস্থায় ফের দিল্লির মসনদে মোদির ক্ষমতাসীন হওয়ার আভাসে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে মুসললমানরা। গত ১৯ মে শেষ দফা ভোটগ্রহণ শেষ হয়। এরপর বুথ ফেরত জরিপ প্রকাশ হতে থাকে। এসব জরিপে দেখা যায়, ৫৪২ আসনের লোকসভায় তিন শতাধিক আসন নিয়ে বিজেপির নেতৃত্বাধীন জোট ফের ক্ষমতায় আসছে। সূত্র : দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া

নিরাপত্তা আক্রমণ ব্যর্থ করে দিচ্ছে তুরস্ক

তুরস্কের প্রতিনিয়িত নিরাপত্তা ফাঁদগুলো ব্যর্থ করে দিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান। রোববার তুরস্কের স্বাধীনতার শতবছর উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।খবর ইয়েনি শাফাকের।

এরদোগান বলেন,আমরা প্রতিদিন নিজেদের উন্নত ভবিষ্যতের জন্য নতুন উচ্চাকাঙ্ক্ষা নিয়ে এগিয়ে চলি।অতচ সিরিয়ার ভাইয়েরা কত অসহায়।তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। প্রসঙ্গত,১৯ মে তুরস্কের ইতিহাসে একটি মাইলফলক।

যেদিন মোস্তফা কামাল হয়েছিলেন মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক। তিনি কৃষ্ণ সাগরের সামসুন শহরে ইস্তানম্বুল থেকে এসেছিলেন যুদ্ধ সংগঠনের জন্য, যা চার বছর পরে উসমানীয় সাম্রাজ্যের অবশিষ্টাংশ আধুনিক তুরস্কে রূপান্তরিত হয়েছিল।

এস-৫০০ তৈরির ঘোষণা এরদোগানের রাশিয়ার সাথে যৌথভাবে এস-৫০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনার ঘোষণা দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান।শনিবার ইস্তাম্বুলে এক অনুষ্ঠানে এরদোগান এ ঘোষণা দেন।এ খবর জানিয়েছে এএফপি।

এরদোগান বলেন, ‘তুরস্কের এস-৪০০ কেনা থেকে ফিরে আসার কোনো সম্ভাবনাই নেই। এ ব্যাপারে চুক্তি হয়ে গেছে।এস-৪০০ পর যৌথভাবে এস-৫০০ তৈরি করা হবে।’ রাশিয়ার এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র একই সঙ্গে ৮০টি লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করতে সক্ষম।

তুরস্কের ক্ষেপণাস্ত্র কেনা নিয়ে উত্তেজনার ভেতর এরই মধ্যে দেশটির সঙ্গে এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান-সংক্রান্ত কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে আমেরিকা। আমেরিকা চায়, রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্রের বদলে তুরস্ক তাদের প্যাট্রিয়ট ক্ষেপণাস্ত্র ক্রয় করুক।

সম্প্রতি আমেরিকা ও ইউরোপের সঙ্গে সম্পর্কের টানাপড়েনের ফলে তুরস্ক রাশিয়ার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক স্থাপন করছে।।সূত্র : এএফপি কেন এস-৪০০ এতো গুরুত্ব? রাশিয়ার তৈরী ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষ ব্যবস্থা এস-৪০০তে সর্বাধুনিক এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম স্থাপন করা রয়েছে, যা ইতিপূর্বে পশ্চিমা বিশ্ব কোনো দেশকে দিতে পারেনি।

এস-৪০০’র রাডার, সেন্সর এবং মিসাইল একটি বিরাট এরিয়ায় প্রভাব বিস্তার করতে পারে। এর রাডারে ক্ষমতা প্রায় ৬০০ কিলোমিটার আর মিসাইলের ক্ষমতা ৪০০ কিলোমিটার পর্যন্ত। এই ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থায় একত্রে একাধিক লক্ষ্যে নজর রাখতে পারে। এছাড়া এটি এক মিনিটের মধ্যেই স্থান পরিবর্তন করতে পারে।

এটা এমনটি একটি সিস্টেম যা একের মধ্যে সব রয়েছে। এটি একত্রে দূরবর্তী, মধ্যবর্তী বা নিকটবর্তী লক্ষ্য নির্ধারণ করতে পারে। এটি নির্ভর করে এর ব্যবহারের ওপর।এস-৪০০ যে কোনো দেশের জন্য উপযোগী।কারণ এই সিস্টেমটি স্থানান্তর বা চলাচলের জন্য যেমন কোনো জটিলতা নেই