নির্বাচনের শেষ পর্যায়ে এসে গুহায় গিয়ে ধ্যানে বসলেন মোদী!

ভারতের ১৭তম লোকসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ প্রায় শেষ পর্যায়ে চলে এসেছে। সাত পর্বের এ বিশাল কর্মযজ্ঞের শেষপর্বটি অনুষ্ঠিত হবে আগামীকাল ১৯ মে। ২৩ মে এ লোকসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হবে। ইতিমধ্যেই প্রচার-প্রচারণার কাজ শেষ হয়েছে।

এদিকে দেশটির বর্তমান উগ্র হিন্দুত্ববাদী দল বিজেপি সরকারের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রচারণার কাজ শেষ করে গেরুয়া বসনে ধ্যানে মগ্ন হয়েছেন। ২ কিলোমিটার নিজের পায়ে হেঁটে উত্তরাখন্ডের কেদারনাথের ওই গুহায় গিয়ে ধ্যানে বসেছেন তিনি। সূত্রের খবর,

কাল সকাল অবধি ওই গুহায় গভীর ধ্যানে মগ্ন থাকবেন মোদী। এ দিন সকালেই কেদারনাথ মন্দিরে পূজা করে গুহার ভিতরে ধ্যানে বসেন মোদী। কাল সকালেই ওই গুহা থেকে নিজের ধ্যান ভঙ্গ করবেন বলে ভারতীয় মিডিয়াগুলো জানিয়েছে। সূত্র : ইন্ডিয়া টাইমস

ফিলিস্তিনির গাজাবাসীকে ১৫ লাখ ডলার অনুদান দিলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো।

টবল তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো টবল তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো পর্তুগিজের ফুটবল তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে ফিলিস্তিনির অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার সংকটাপন্ন লোকজনকে ১৫ লাখ ডলার অনুদান দিয়েছেন। গাজাবাসীর দুর্ভোগ কিছুটা হলেও লাঘব হবে এমন আশাতে রোনালদো এ অনুদান দেন।

ফুটবল জগতের খ্যাতিমান এ তারকা বেশ কয়েকবার ফিলিস্তিনিদের ওপর ইহুদিবাদী ইসরাইলের বর্বরতার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। ২০১২ সালে রোনালদো তার গোল্ডেন বুট নিলামে তুলে তহবিল সংগ্রহ করেছিলেন এবং সেই অর্থ ফিলিস্তিনি শিশুদের জন্য দান করেছিলেন।

গাজার শিশুরা ২০১৩ সালে পর্তুগাল ও ইসরাইলের মধ্যকার এক ফুটবল ম্যাচ শেষে জার্সি বদলের জন্য ইসরাইলি খেলোয়াড়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিলেন রোনালদো। ২০০৭ সাল থেকে গাজা উপত্যকা ইহুদিবাদী ইসরাইলের অবরোধের মধ্যে রয়েছে।

এর ফলে সেখানকার জনগণের জীবনযাত্রার মান মারাত্মকভাবে নেমে গেছে। পাশাপাশি মারাত্মক রকমের বেকারত্ব ও সীমাহীন দারিদ্রতা দেখা দিয়েছে গাজা উপত্যকায়। পার্সটুডে

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানে হামলার জন্য আমেরিকার ইরাকের ভূখণ্ড ব্যবহার করতে দেয়া হবে না!

রাশিয়ায় নিযুক্ত ইরাকের রাষ্ট্রদূত হায়দার মানসুর হাদি বলেছেন, ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের বিরুদ্ধে হামলার জন্য আমেরিকাকে তার দেশের ভূখণ্ডকে ব্যবহার করতে দেয়া হবে না। তেহরান এবং ওয়াশিংটনের মধ্যে যখন মারাত্মক সামরিক উত্তেজনা বিরাজ করছে তখন ইরাকি রাষ্ট্রদূত এ কথা বললেন।

গতকাল (বুধবার) মস্কোয় এক সংবাদ সম্মেলনে ইরাকি রাষ্ট্রদূত বলেন, “মধ্যপ্রাচ্যে আর কোনো ধ্বংসাত্মক যুদ্ধ দেখতে চায় না ইরাক। ইরাক একটি স্বাধীন-সার্বভৌম দেশ। আমরা আমাদের ভূখণ্ড আমেরিকাকে ব্যবহার করতে দেব না।”

ইরাকের প্রধানমন্ত্রী আদিল আবদুল-মাহদি এর আগে ইরাকের প্রধানমন্ত্রী আদিল আবদুল-মাহদিও একই কথা বলেছেন। তিনি আরো বলেছেন, ইরান ও আমেরিকার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ককে ব্যবহার করে ইরাক দুপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা কমানোর ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে পারে। তিনি জোর দিয়ে বলেন, “ইরাক পরিষ্কার করে দিয়েছে যে, আমরা সমাধানের অংশ হব, সংকটের অংশ হব না।”

আমেরিকা সাম্প্রতিক দিনগুলোতে ইরানের কথিত হুমকি মোকাবেলার জন্য মধ্যপ্রাচ্যে বিশেষ করে পারস্য উপসাগরে যুদ্ধজাহাজ ও বি-৫২ বোমারু বিমান মোতায়েন করেছে। শুধু তাই নয় ইরাকে মার্কিন দূতাবাস ও কন্স্যুলেট ভবন থেকে জরুরি নয় -এমন লোকজনক দ্রুত দেশে ফিরিয়ে নিচ্ছে।