কাশ্মীরিদের পাশে থাকার ঘোষণা মমতার!

কাশ্মীর নিয়ে অবশেষে মুখ খুললেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তিনি স্পষ্ট জানালেন, বাংলা কাশ্মীরিদের পাশে আছে। কাশ্মীরের মানুষ যেন নিজেদের বিচ্ছিন্ন না ভাবে কাশ্মীরের মানুষ স’ন্ত্রাসী-

নয় তিনি মেহবুবা মুফতি, ফারুক আবদুল্লা ও ওমর আবদুল্লাদের পাশে থাকার বার্তা দেন লোকসভায় একই দাবিতে সরব হন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। মমতা বলেন, আমরা এই বিলটিকে সমর্থন করতে পারি না।

আমরা এই বিলের পক্ষে ভোট দিতেও পারি না সরকারের উচিত ছিল সব রাজনৈতিক দল এবং কাশ্মীরিদের সঙ্গে কথা বলা। যদি আপনাকে স্থায়ী সমাধানে পৌঁছানোর দরকার হয় তবে আপনাকে আলোচনার রাস্তায় আসতেই হবে।

বাংলার মুখ্যমন্ত্রী আরও জানান, ফারুক আবদুল্লাহ, ওমর আবদুল্লাহ এবং মেহবুবা মুফতি সম্পর্কে আমার কোনো তথ্য নেই। আমি কেন্দ্রের সরকারের কাছে আবেদন করছি যেন তারা এবং কাশ্মীরের মানুষ নিজেদের বিচ্ছিন্ন না ভাবে, তার ব্যবস্থা করুন।

কেননা কাশ্মীরের মানুষ সন্ত্রাসী নন। তৃণমূলের লোকসভা দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ও সংসদে একই দাবিতে সরব হন। তিনি ওমর আবদুল্লাহ, মেহবুবা মুফতি এবং ফারুক আবদুল্লার গ্রেপ্তার নিয়ে প্রশ্ন তোলেন।

তারপরই বিক্ষোভ দেখিয়ে তৃণমূল সংসদ সদস্যরা সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে লোকসভা থেকে ওয়াকআউট করেন। সদস্যরা সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে লোকসভা থেকে ওয়াকআউট করেন।

“কাশ্মীরের জনগণকে সব ধরনের সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত পাক সেনাবাহিনী”

পাকিস্তানের সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া বলেছেন, তার সেনারা কাশ্মীরিদের সহযোগিতায় যে কোনও পদক্ষেপ নিতে প্রস্তুত রয়েছে। কাশ্মীরকে সাহায্য করার লক্ষ্যে তাঁরা যে কোন সীমা অতিক্রম করতে সদা প্রস্তুত।

ভারত সরকার জম্মু-কাশ্মিরের স্বায়ত্তশাসন ও বিশেষ অধিকার বাতিলের একদিন পর মঙ্গলবার এই মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানি সেনাপ্রধান। আজ মঙ্গলবার (৬ আগস্ট) কাশ্মীর ইস্যুতে-

আয়োজিত পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারক ফোরাম কর্পস কমান্ডার্স কনফারেন্সে সভাপতিত্ব করেন জেনারেল জাভেদ বাজওয়া। সেনা সদর দফতরে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

পাক সেনাপ্রধান জেনারেল বাজওয়া বলেন, কাশ্মীরিদের লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত দৃঢ়ভাবে পাশে থাকবে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। আমরা প্রস্তুত এবং আমাদের দায়বদ্ধতার পূর্ণতা দিতে যে কোনও পর্যায় পর্যন্ত সহযোগিতা করব।

বৈঠকের বিষয়ে দেওয়া বিবৃতিতে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী বলেছে, কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের পদক্ষেপকে প্রত্যাখ্যানের যে অবস্থান পাকিস্তান নিয়েছে সেটাকে পূর্ণ সমর্থন জানায় সেনাবাহিনী।

বিবৃতিতে বলা হয়, পাকিস্তান কখনোই ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ বা ৩৫-এ ধারাকে স্বীকৃতি দেয়নি। যা এখন দিল্লী নিজেই বাতিল করছে। সোমবার ভারত সরকার কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিলের পরপরই প্রতিক্রিয়া জানায় পাকিস্তান।

দেশটি ভারতের এই পদক্ষেপকে অবৈধ ও একতরফা হিসেবে উল্লেখ করে প্রত্যাখ্যান করেছে। দেশটি ভারতের এই পদক্ষেপকে অবৈধ ও একতরফা হিসেবে উল্লেখ করে প্রত্যাখ্যান করেছে।