করোনার ওষুধ আবিষ্কারের দাবি করলো গরুর মূত্র খেয়ে অসুস্থ হওয়া সেই রামদেব!

করোনায় সংক্রমণে তীব্রতায় যখন কোন সুবিধা করতে পারছে না বিশ্বের বিজ্ঞানীরা, তখন সব কিছুকে গুটিয়ে দিয়ে করোনার ওষুধ আবিষ্কারের দাবি করে বসলো রামদেব। এর আগে গরুর মূত্র খেয়ে অসুস্থ হওয়া হিন্দু ধর্মাবলম্বী এই যোগগুরু করোনার কার্যকরী ওষুধ বানানোর ঘোষণা দেয়।

তার পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, কেবল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো নয়, সবাইকে টেক্কা দিয়ে করোনা সংক্রমণ সারানোর ক্ষেত্রে এ ওষুধ শতভাগ কার্যকরী। এটির নাম করোনিল।

তিনি আরো দাবি করলেন, ওষুধের প্রতিক্রিয়া পরীক্ষা করে দেখতে আমরা একটি সমীক্ষা তথা ক্লিনিক্যাল কেস স্টাডি ও ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের আয়োজন করেছি।

মাত্র তিন দিনে ৬৯ শতাংশ রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন এবং সাত দিনে ১০০ শতাংশ করোনা রোগীই সেরে উঠেছেন। তার ওষুধ প্রয়োগের ফলে মৃত্যুর হার শূন্য এবং ১০০ শতাংশ সুস্থ হয়ে ওঠার হার দেখা গেছে বলেও তিনি দাবি করলেন।

তবে ইন্ডিয়ান মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল (আইসিএমআর) এবং আয়ুষ মন্ত্রণালয় উভয়ই এই কথিত ওষুধকে বাতিল করেছে।

এবার যুক্তরাষ্ট্রে দেয়াল দিয়ে করোনা ঠেকিয়ে দিতে চান ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, মেক্সিকো সীমান্তে তার নতুন দেয়াল করোনাভাইরাস রুখে দেবে। মঙ্গলবার মেক্সিকো সীমান্ত পরিদর্শনের গিয়ে তিনি বলেন, এই দেয়াল অবৈধ অভিবাসী এবং করোনাভাইরাস উভয়কেই যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করা থেকে রুখে দেবে।

আল জাজিরার খবরে বলা হয়, এদিন সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য সীমান্তে থামেন ট্রাম্প এবং নির্মিতব্য দেয়ালের নতুন একটি সেকশন পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি একটি কংক্রিটের কাঠামোর ওপর সিগনেচার করেন।
এসময় তিনি দাবি করেন, এটি (দেয়াল) কোভিড রুখে দেবে, এটি সবকিছু ঠেকিয়ে দেবে।

এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে ১ লাখ ২৩ হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ২৪ লাখ ২৫ হাজারের মতো মানুষ। যদিও বর্তমানে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর হার অনেক কমে এসেছে।

অপরদিকে মেক্সিকোতে করোনা পরিস্থিতি খুবই খারাপ। বুধবার সকালে ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য মতে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৭৯৩ জনের। নতুন শনাক্ত হয়েছেন ৬ হাজার ২৮৮ জন। দেশটিতে মোট মৃত্যু ২৩ হাজার ২৮৮ এবং মোট শনাক্ত ১ লাখ ৯১ হাজার ৪১০ জন।

আরো পড়ুন-মাস্ক না পরায় বুলগেরিয়ার প্রধানমন্ত্রীকে জরিমানা করল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

করোনাভাইরাস মহামারিতে সুরক্ষামূলক ফেস মাস্ক না পরার কারণে বুলগেরিয়ার প্রধানমন্ত্রী বয়কো বোরিসোভকে ১৭৪ মার্কিন ডলার জরিমানা করছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। হাজার বছরের ঐতিহ্যবাহী পুরোনো একটি গির্জা পরিদর্শনে গিয়ে মাস্ক পরার বিধান না মানায় এই জরিমানা গুণতে হচ্ছে তাকে বলে মঙ্গলবার মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

এর আগে, গত সপ্তাহে বলকান অঞ্চলের এই দেশটিতে করোনাভাইরাসের রেকর্ড সংক্রমণের পর সোমবার বুলগেরিয়ানদেরকে সব ধরনের ঘরোয়া অনুষ্ঠানে পুনরায় মাস্ক পরার নির্দেশ দেন দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী কিরিল আনানিয়েভ।

বার্তাসংস্থা রয়টার্সের কাছে পাঠানো এক ই-মেইলে মন্ত্রী কিরিল বলেছেন, রিলা মোনাসটারি গির্জায় সুরক্ষা মাস্ক ছাড়া যারা প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হয়েছিলেন তাদের সবাইকে জরিমানা করা হবে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বয়কো বোরিসোভ ছাড়াও সাংবাদিক, আলোকচিত্রীসহ যারা ক্যামেরা নিয়ে গির্জায় তার সফরসঙ্গী ছিলেন তাদেরকেও জরিমানা গুণতে হবে। তবে গির্জার ভেতরে মাস্ক না পরা পাদ্রীদের জরিমানা হবে কিনা সেব্যাপারে কিছু জানানো হয়নি।

দেশটির রাজধানী সোফিয়ার দক্ষিণের রিলা পার্বত্য অঞ্চলের হাজার বছরের পুরনো ইস্টার্ন অর্থোডক্স রিলা মোনাসটারি গির্জা পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণীয় স্থান।

কঠোর লকডাউন এবং মাস্ক পরার বাধ্যতামূলক বিধি-বিধানের কারণে বুলগেরিয়ার করোনা পরিস্থিতি এখনও অনেক ভালো রয়েছে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত মাত্র ৩ হাজার ৯৮৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং মারা গেছেন ২০৭ জন। কিন্তু গত সপ্তাহে বলকান এই রাষ্ট্রে নতুন করে অন্তত ৬০৬ জন করোনায় সংক্রমিত হন।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহান থেকে বিশ্বের দুই শতাধিক দেশে ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস। প্রথম দিকে ইউরোপ এবং আমেরিকায় ব্যাপক তাণ্ডব চালালেও বর্তমানে এশিয়া, উত্তর আমেরিকা এবং আফ্রিকা হয়ে উঠছে ভাইরাসটির উপকেন্দ্র। অতীতে সংক্রমণের দৈনিক সব রেকর্ড ভেঙে প্রত্যেকদিন নতুন রেকর্ড গড়ছে।

ওয়ার্ল্ডওমিটার বলছে, গত কয়েকদিন ধরে গড়ে এক লাখের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এক লাখ ৩৯ হাজার ৬০৭ জন। তার আগের দিন আক্রান্ত হয়েছেন এক লাখ ৩০ হাজার মানুষ। তবে এখন পর্যন্ত একদিনে সর্বোচ্চ এক লাখ ৮২ হাজার ২০২ জন আক্রান্ত হয়েছে গত ১৯ জুন।

নতুন ও অপ্রতিরোধ গতিতে বিস্তার ঘটাতে থাকা করোনায় বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যাও প্রায় কোটি (৯২ লাখ ২৮ হাজারের বেশি) ছুঁতে চলেছে। এই ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার পর মারা গেছেন ৪ লাখ ৭৫ হাজারের বেশি।