আয়াসোফিয়াকে মসজিদে রূপান্তরিত করায় এরদোগানকে অভিনন্দন জানালেন ইমরান খান

ইস্তাম্বুলের ঐতিহাসিক আয়াসোফিয়া মসজিদকে ৮৬ বছর পর ফের মসজিদে রূপান্তর করায় তুরস্ক ও তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়িব এরদোগানকে অভিনন্দন জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

শনিবার এক টুইটে পাক-প্রধানমন্ত্রী এ অভিনন্দন জানান। এসময় তিনি মন্তব্য করেন, আয়াসোফিয়া পুনরায় খুলে দেয়ার দিনটি একটি ঐতিহাসিক দিন। একইসঙ্গে আয়াসোফিয়ার এই পুনর্জীবন দানে তুর্কি জনগণের প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করেছেন পাকিস্তানের একাধিক সংগঠন ও তার নেতৃবৃন্দ। এদের মধ্যে রয়েছেন পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামির আমির সিনেটর সিরাজুল হক, পাঞ্জাবের প্রাদেশিক মন্ত্রী ওসমান বোজদার প্রমুখ।

এছাড়া, ইউরোপের বিভিন্ন দেশের মুসলিমরাও এরদোগানের সাহসী এই সিদ্ধান্তের প্রশংসা করছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুসলিম বিশ্বের তুমুল জনপ্রিয় এই নেতার দীর্ঘায়ুও কামনা করছেন এদের অনেকে।

গত শুক্রবার পবিত্র জুমার নামাজের মধ্য দিয়ে ৮৬ বছর পর পুনরায় মসজিদ হিসেবে যাত্রা শুরু করলো তুরস্কের ইস্তাম্বুলের ঐতিহাসিক আয়াসোফিয়া।

সকাল থেকেই আয়া সোফিয়া অভিমুখে মানুষের ঢল নামে। ঐতিহাসিক এই স্থাপনার বাইরে ও রাস্তায় মানুষ নামাজ আদায় করেন। সোশ্যাল মিডিয়াতে এই মসজিদে নামাজের জায়গা পেতে রাতেই মানুষের জমায়েতের ছবি ভাইরাল হয়।

জুমার নামাজের আগেই উপস্থিত হন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান। মসজিদে প্রবেশ করে তিনি পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত করেন। এসময় তিনি সুরা আল-ফাতিহা ও সুরা আল-বাকারা থেকে কয়েকটি আয়াত তেলাওয়াত করেন। এরপরে, মসজিদের চারটি মিনার থেকে চারজন মুয়েজিন আজান দেয়। অতঃপর উপস্থিত লোকেরা জুমার নামাজ শুরু করে।

১৪৫৩ সালে সুলতান মুহাম্মাদ আল ফাতিহ কর্তৃক কনস্টান্টিনোপল বিজয়ের পূর্বে ৯৬১ বছর পর্যন্ত আয়াসোফিয়া ক্যাথিড্রাল খ্রিস্টানদের গীর্জা হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছিল। এবং এখানে বসেই বিশ্বের মুসলিমদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হতো। বিজয় পরবর্তী সময়ে সুলতান মুহাম্মাদ আল ফাতিহ নিজ সম্পত্তি দিয়ে ক্রয় করে এটিকে মসজিদ হিসেবে ওয়াকফ করে দেওয়ার পর থেকে প্রায় ৫০০ বছর পর্যন্ত আয়াসোফিয়া মসজিদ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছিল। কিন্তু তুরস্কের ইসলাম বিদ্ধেষী শাসক কামাল আতাতুর্কের শাসনামলে ১৯৩৪ সনে বিতর্কিত রায়ের মাধ্যমে মসজিদটিকে জাদুঘরে রূপান্তরিত করা হয়। এরপর থেকে মসজিদটিকে ফিরিয়ে আনতে মুসলমানদের দীর্ঘ ৮৬টি বছর অপেক্ষার প্রহর গুনতে হয়েছে। অবশেষে চলতি জুলাই মাসের ১০ তারিখে তুরস্কের শীর্ষ প্রশাসনিক আদালতের এক ঐতিহাসিক রায়ের মাধ্যমে ১৯৩৪ সালের জাদুঘরে রূপান্তরের বিতর্কিত রায়টি বাতিল করা হয়। এবং আয়াসোফিয়াকে পুনরায় মসজিদ হিসেবে রূপান্তরিত হয়।

সূত্র : আল জাজিরা আরবি