‘আয়াসোফিয়া নিয়ে বাড়াবাড়ি প্রমাণ করে যে ইসলাম ও তুরস্কের প্রতি গ্রীসের শত্রুতা রয়েছে’

আয়াসোফিয়া গ্র্যান্ড মসজিদ নিয়ে গ্রীসের বাড়াবাড়ির কড়া জবাব দিয়েছে তুরস্ক। তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হামী আকসাওয়ী গ্রীসের কঠোর সমালোচনা করে বলেন, ‘গ্রীস এমন একটি ইউরোপীয়ান রাষ্ট্র যাদের রাজধানীতে একটি মসজিদও নেই। সুতরাং, সার্বভৌমত্বের অধিকার কিভাবে ব্যবহার করতে হয়, তুরস্ককে সেটা শিখানোর অধিকার তারা রাখে না।’

সংবাদ মাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে হামী আকসাওয়ী বলেন, ‘আয়াসোফিয়াকে মসজিদে রূপান্তরে গ্রীসের আবারো প্রতিবাদ জানানো এটাই প্রকাশ করে যে ইসলাম এবং তুরস্কের প্রতি তাদের শত্রুতা রয়েছে।’

তুরস্কের ব্যাপারে গ্রীক সরকার ও সাংসদরা যে সকল আক্রমণাত্মক শব্দ ব্যবহার করছে এবং থেসালোনিকিতে তুরস্কের পতাকা জ্বালানোতে তাদের প্রকাশ্য সমর্থনের যে বিষয়টি সামনে এসেছে তিনি এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। এছাড়াও তিনি গ্রীসকে বাইজেন্টাইনীয় স্বপ্ন দেখা থেকে জেগে উঠার আহবান জানান।

হামী আকসাওয়ী বলেন, ‘আয়াসোফিয়া গ্র‍্যান্ড মসজিদের মালিকানা ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব তুরস্কের কাছেই থাকবে এবং আঙ্কারা তা সকলের জন্যই উন্মুক্ত রাখবে।’

উল্লেখ্য, আয়াসোফিয়া গ্র‍্যান্ড মসজিদের উদ্বোধনী জুমুআ’র আগে মুসল্লীদের জনসমাগমে এরদোগান যখন কুরআন তিলাওয়াত করছিলেন তখন গ্রীসের সব গীর্জায় ঘন্টা বাজানো হয়েছিল।

এই দুটি ন্যাটো সদস্য দেশের মাঝে আগে থেকেই উত্তেজনা চলছিল। তবে ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে নিজেদের শক্তি বৃদ্ধি ও আয়াসোফিয়ার ব্যাপারে তুরস্কের পদক্ষেপে এই উত্তেজনা অতিমাত্রায় বেড়ে যায়।

তাছাড়া এই বছরের শুরুতে অভিবাসন ইস্যুতেও তুরস্ক ও গ্রীসের মাঝে উত্তেজনা দেখা দিয়েছিল। বিশেষত, শরণার্থীরা ইউরোপে যাওয়ার জন্য যখন তুরস্ক সীমান্ত খুলে দিয়েছিল।

সূত্র: আল জাজিরা