বাংলাদেশ সীমান্তে অতিরিক্ত বি এস এফ মোতায়েন করল ভারত

সীমান্ত নিয়ে প্রতিবেশীদের আগ্রাসনে ভারতের অস্বস্তির চরমে। চিন-ভারত লাদাখ সীমান্ত ফুটছে, আবার কাশ্মীর সীমান্তে পাকিস্তানের হামলা প্রায় নিত্য ঘটনায় দাঁড়িয়েছে।

অন্যদিকে নেপাল মানচিত্র বদলে মুখ ভার করে রয়েছে এমনকি ছোট্ট প্রতিবেশি ভুটানও চিনের লাল ফৌজকে তাদের ওয়াচ টাওয়ার ব্যবহার করতে দিয়ে পরোক্ষে সীমান্ত সমস্যায় সায় দিয়ে চলেছে।

এই অবস্থায় মুর্শিদাবাদের বাংলাদেশ সীমান্তে বাড়তি বিএসএফ সদস্য মজুত করেছে ভারত। এমনটাই জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজার।

তারা জানায়, মুর্শিদাবাদের জলঙ্গি সীমান্তে বিএসএফের বেশ কয়েকটি ক্যাম্প রয়েছে। পদ্মা নদী বরাবর টহলদারিও নতুন নয়।

কিন্তু গত কয়েক দিনে সীমান্তের বেশ কয়েকটি কলেজ এবং ফ্লাড শেল্টারে নতুন করে কয়েক কোম্পানি বিএসএফ সদস্য এসে আস্তানা গাড়ায় স্থানীদের মধ্যে প্রশ্ন জেগেছে, এত সেনা সদস্য কেন? প্রশ্নটা অমূলক নয় জেলা প্রশাসনের কাছেও।

জেলা কর্তারা এ ব্যাপারে অন্ধকারে। এক শীর্য কর্তার কথায়, ‘‘এ তো আর নির্বাচনের সময় নয় যে কেন্দ্রীবাহিনী আমাদের জানিয়ে আসবে। ফলে সীমান্তে আধাসেনা মোতায়েনের কোনও কারণ আমাদের সরাসরি জানানো হয়নি।

ফলে আমরাও জানি না কেন এত আধাসেনা মোতায়েন করা হচ্ছে।’’

ইতিমধ্যেই রানিনগর এবং জলঙ্গির বেশ কয়েকটি ফ্লাড শেল্টারে বিএসএফ সদস্য রাখা হয়েছে। নেওয়া হয়েছে বেশ কয়েকটি বন্ধ কলেজও।

সীমান্তে নজরদারি বাড়ানোর কথা অবশ্য স্বীকার করে নিয়েছেন বিএসএফের কর্তারা। বিএসএফ সদস্যকে যে ‘বিশেষ সতর্ক’ বা স্পেশ্যাল অ্যালার্ট থাকতে বলা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

তবে, বিএসএফের বহরমপুর রেঞ্জের ডিআইজি কুনাল মজুমদার বলছেন, ‘‘মূলত লকডাউনের ফলেই সীমান্তে কিছু জওয়ানের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে।

ক্যাম্পে জায়গা না হওয়ায় তাঁদের বন্ধ থাকা ওই কলেজে রাখা হয়েছে।’’

সূত্রঃ- আনন্দবাজার

আরো পড়ুন: ভারতে মাটি খুঁড়ে মিলল ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ খচিত স্বর্ণ মুদ্রা

ভারতে তামিলনাড়ুর প্রত্মতত্ত্ব বিভাগ শিবগঙ্গাই জেলার কালাইয়ার কয়েলের কাছে এলানধাক্কারাইয়ে মাটি খুঁড়ে উদ্ধার করেছে সিরিয় সোনার মুদ্রা। ওই স্বর্ণমুদ্রায় আরবিতে খোদাই করা রয়েছে, ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ (আল্লাহ্ ছাড়া কোনো উপাস্য নেই)।
মুদ্রাটি ষষ্ঠ শতকের বলে অনুমান করা হচ্ছে। প্রত্মতত্ত্ব বিভাগের এক কর্মী জেমিনি রমেশ বলেছেন, ‘এই মুদ্রা প্রমাণ করে মাদুরাই অঞ্চলে ইসলাম ধর্ম অনেক আগে প্রসার লাভ করেছিল।’ শিক্ষাবিদরা এই এলাকাকে ভাইগাই উপত্যকা সভ্যতার অংশ হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

২৩০০ বছর আগের এই সভ্যতার হদিস মেলার পর ২০১৫ সালে এখানে খননকার্য শুরু হয়। মাদুরাইয়ের বাসিন্দা মুহাম্মদ ইউসুফ নামের একজন আইনজীবী বলেছেন, ‘১৪ শতকে মালিক কাফুরের মাদুরাই জয়ের আগেই ইসলাম পৌঁছেছিল এখানে। আরবের সঙ্গে দক্ষিণ ভারতের বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিল আর পান্ড্য রাজত্ব মুক্তার জন্য প্রসিদ্ধ ছিল।’ তার ধারণা, ইসলামের অস্তিত্ব যে এখানে বহু আগে থেকেই ছিল তা খনন চালিয়ে গেলে ক্রমশ প্রকাশিত হবে।

মাদুরাই শহরতলির অদূরে কিঝাড়ি ও শিবগঙ্গাই জেলার সীমান্তে খননকার্য শুরু হয়েছিল চলতি বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি। লকডাউনের আগে এই খননকার্য উদ্বোধন করেছিলেন ওই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পালানিসামি। লকডাউনের জেরে কাজ বন্ধ থাকলেও আবার তা চালু হয়েছে। সূত্র : মুসলিম মিরর