এ দেশের মানুষের ৩০ হাজার কোটি টাকা যাকাত দেয়ার সক্ষমতা রয়েছে

গতকাল শনিবার (৪ মে) রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে সেন্টার ফর যাকাত ম্যানেজমেন্টের উদ্যোগে আয়োজিত ‘আয় বৈষম্য হ্রাসে যাকাত ও করের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে এ তথ্য জানানো হয়।

বাংলাদেশে অর্থের যে প্রবাহ রয়েছে, এতে বছরে ৩০ হাজার কোটি টাকা যাকাত দেয়ার সক্ষমতা রয়েছে এ দেশের মানুষের।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধে এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ বলেন, যাকাত ও করের অর্থ সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন ও আয় বৈষম্য কমানো সম্ভব।

এর জন্য বিদ্যমান কর ব্যবস্থার সংস্কার এবং রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনায় প্রাতিষ্ঠানিকভাবে যাকাত দেয়ার ব্যবস্থা গড়ে তোলার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন বক্তারা।

দারিদ্র্য বিমোচনকে অগ্রাধিকার দিয়ে বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণের ফলে বর্তমান সরকারের আমলে দারিদ্র্য কমে এসেছে বলে জানান পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

আরো পড়ুন: রমজানের আগেই তুরস্কের সবচেয়ে বড় মসজিদ ক্যামলিকা খুলে দিলেন এরদোয়ান!

তুরস্কে চালু হলো দেশটির সবচেয়ে বড় মসজিদ। প্রাচীন নগরী ইস্তাম্বুলে নির্মিত এই মসজিদটির নাম ক্যামলিকা মসজিদ। ছয় বছর আগে নির্মাণ কাজ শুরু হওয়া মসজিদটির কাজ শেষ হয়েছে সম্প্রতি।

ইস্তাম্বুল নগরীর মাঝখান দিয়ে প্রবাহিত বসফরাস প্রণালীর দক্ষিণ উপকূলে পাহাড়ের ওপর নির্মিত কমালিকা কমপ্লেক্স নামে তুরস্কের সর্ববৃহৎ মসজিদ উদ্বোধন করেছেন এরদোগান।

গতকাল মসজিদটি উদ্বোধনের সময় এরদোগানের সাথে ছিলেন আলবেনিয়া প্রেসিডেন্ট আলির মেটা, গিনির প্রেসিডেন্ট আলফা কন্ডে, সেনেগালিজের প্রেসিডেন্ট ম্যাকি সাল এবং ফিলিস্তিনি প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ শায়তাহ সহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক প্রতিনিধি।

২০১২ সালে প্রেসিডেন্ট রিসেফ তাইয়েব এরদোগানের নির্দেশ মসজিদটি অত্যাধুনিক করে নির্মাণের কাজ শুরু হয়। নামাজের জায়াগা ছাড়াও এতে রয়েছে জাদুঘর, আর্ট গ্যালারি ও বিশাল একটি লাইব্রেরি। পাহাড়ের ওপর এমনভাবে নির্মাণ করা হয়েছে মসজিদটি যাতে ইস্তাম্বুল নগরীর সকল জায়গা থেকে এটিকে দেখা যায়। এই মসজিদটি 63 হাজার মানুষের ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন।

১০৭. ১ মিটার উঁচু ছয়টি মিনার রয়েছ মসজিদটিতে। ১০৭১ সালে বাইজেন্টাইন বাহিনীর বিরুদ্ধে বিজয়ের কথা স্মরণ করে এটি করা হয়েছে। আর ইস্তাম্বুলে বসবাসরত ৭২টি জাতির মানুষের কথাটি মাথায় রেখে সর্বোচ্চ গম্ভুজটির উচ্চতা রাখা হয়েছে ৭২ মিটার।অটোমান-সেলজুক স্থাপত্যের ঐতিহ্য অনুসরণ করে এই মসজিদটি তৈরি করা হয়

মসজিদটিতে বিছানোর জন্য ১৭ হাজার বর্গমিটার বিশেষভাবে সম্পূর্ণ হাতে বোনা কার্পেট রাখা হয়েছে। মসজিদের মিম্বরের উচ্চতা ২১ মিটার, যেখানে ইমামের ওঠার জন্য রয়েছে এলিভেটর। একই সাথে ৮টি জানাজা অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা রয়েছে মসজিদটিতে।