কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে বাংলাদেশি খতিব

কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের খতিব পদে নিযুক্ত হয়েছেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থী মোহাম্মদ আবু তালেব। বর্তমানে তিনি কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিকহ ও উসুলে ফিকহ বিভাগে মাস্টার্সে অধ্যয়ন করছেন।

চট্টগ্রাম হাটহাজির সন্তান মোহাম্মদ আবু তালেব জামিয়া দারুল মাআরিফ আল-ইসলামিয়া চট্টগ্রামের প্রাক্তন শিক্ষার্থী। তিনি এখানে হিফজ সম্পন্ন করেন। অতঃপর কুল্লিয়া প্রথম বর্ষ (মিশকাত) পর্যন্ত অধ্যয়ন করেন।

২০১১ সালে তিনি কাতারের ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অধীনে মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষাবৃত্তি নিয়ে কাতার যান। ২০১৪ সালে উচ্চমাধ্যমিক স্তরে প্রথম স্থান অধিকার করেন তিনি। অতঃপর কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের শরিআহ ও ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে ভর্তি হন। ২০১৯ সালে অনার্সে প্রথম স্থান অধিকার করেন তিনি।

২০১৬ সালে কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে প্রথমবারের মতো ইমাম ও খতিব হিসেবে নিয়োগ পান। সম্প্রতি তিনি দ্বিতীয়বারের মতো এ মসজিদে ইমাম ও খতিব হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন।

আরও সংবাদ

কেউ আজান বন্ধ করতে পারবে না: এরদোগান

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেছেন, ফেটো আর পিকেকের মতো সন্ত্রাসীগোষ্ঠী যতই অপতৎপরতা চালাক না কেন, তার দেশের পতাকা কেউ নামাতে পারবে না।

একই সঙ্গে তিনি বলেন, কেউ ষড়যন্ত্র করে আর তুরস্কে আজান দেয়া বন্ধ করতে পারবে না। তুরস্কে ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থানের চার বছরপূর্তিতে বুধবার জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে এসব কথা বলেন এরদোগান। খবর আনাদোলুর।

তিনি বলেন, ২০১৬ সালের ১৫ জুলাই রাতের আঁধারে ফেতুল্লা টেরটিস্ট অর্গানাইজেশন (ফেটো) সেনা অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করতে চেয়েছিল। কিন্তু দেশটির স্বাধীন-চেতা জনগণ নিজের জীবন তুচ্ছ করে সেদিন তুরস্কের সার্বভৌমত্ব রক্ষা করেছেন।

এর পর থেকে ১৫ জুলাই গণতন্ত্র ও জাতীয় ঐক্য দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে তুরস্কে। যুক্তরাষ্ট্রপন্থী ফেতুল্লা গুলেনকে মূল ষড়যন্ত্রকারী হিসেবে মনে করা হয়।

২০১৬ সালে সেনা অভ্যুত্থানের ২৫১ বেসামরিক লোক নিহত হন। এ ছাড়া আহত হয়েছেন কমপক্ষে ২ হাজার ২০০ জন।