বিশ্বে প্রথম করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করল চীন!

বিশ্বে প্রথম করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করল চীন
করোনাভাইরাস প্রথম ধরা পড়ে চীনে। এখন পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক কোটির বেশি। এতে মারা গেছে ৫ লক্ষাধিক মানুষ।

এই ভাইরাস মোকাবেলায় বিশ্বের শতাধিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ভ্যাকসিন তৈরির চেষ্টা করছে। এর মধ্যে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন এগিয়ে আছে বলে খবর প্রকাশিত হয়েছিল।

কিন্তু সবাইকে ছাড়িয়ে এবার করোনার ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে চীন। সোমবার (২৯ জুন) এ খবর দিয়েছে ইয়াহু নিউজ। খবরে বলা হয়েছে, দেশটির সেনাবাহিনীর গবেষণা শাখা এবং স্যানসিনো বায়োলজিকসের (৬১৮৫.এইচকে) তৈরি একটি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন মানব শরীরে প্রয়োগের অনুমতি পেয়েছে।

তবে আপাতত ভ্যাকসিন শুধুমাত্র সেনাবাহিনীর মধ্যে ব্যবহার করা হবে। স্যানসিনো বলেছে, চীনের সেন্ট্রাল মিলিটারি কমিশন গত ২৫ জুন এডি৫-এনকোভ ভ্যাকসিনটি সৈন্যদের দেহে এক বছরের জন্য প্রয়োগের অনুমোদন দিয়েছে। স্যানসিনো বায়োলজিকস এবং একাডেমি অফ মিলিটারির একটি গবেষণা ইনস্টিটিউট যৌথভাবে ভ্যাকসিনটি তৈরি করেছে।
বিস্তারিত আসছে… সুত্র: সময় টিভি

ভারতের ১৮ কি.মি. দখলে নেয়া চীনকে কি ফেরাতে পারবে ভারত?

ভারতের সামরিক নীতি হলো, নিজে থেকে আগ্রাসী পদক্ষেপ নয়। কিন্তু খারাপ পরিস্থিতিতে সাজসরঞ্জামে যাতে ঘাটতি না হয়, তার ব্যবস্থা করে রাখা। পূর্ব লাদাখে সব রকম খারাপ পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত রয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী।

পৌঁছে গিয়েছে ৪৫ হাজার সেনা, টি-৯০ ভীষ্ম ট্যাঙ্ক, জমি থেকে আকাশমুখী ক্ষেপণাস্ত্র। বসেছে এয়ার সার্ভেল্যান্স সিস্টেম। এরই মধ্যে গালওয়ান উপত্যকায় নতুন করে চিনের আরও ১৬টি সেনা ছাউনির ছবি ধরা পড়েছে সাম্প্রতিক উপগ্রহচিত্রে।

এদিকে গত ২২ জুনের উপগ্রহচিত্রে গালওয়ানে চীনের তৈরি পাকা পরিকাঠামোর হদিস মিলেছিল। এবার খবরে বলা হয়েছে, ২৫ ও ২৬ তারিখের ছবিতে আরও ১৬টি কালো ত্রিপলে ঢাকা সেনাছাউনি দেখা যাচ্ছে, যা আগের ছবিতে ছিল না।

অর্থাৎ চীন সেনা মোতায়েন বাড়িয়েই চলেছে। এমতাবস্থায় দিল্লির সামরিক নীতি হল, নিজে থেকে আগ্রাসী পদক্ষেপ নয়। কিন্তু খারাপ পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে সাজসরঞ্জামে যাতে ঘাটতি না হয়, তার ব্যবস্থা করে রাখা।

দেশটির বিরোধী রাজনৈতিক শিবির প্রশ্ন তুলছে, সে না হয় হল। কিন্তু চীনা সেনা যে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে ১৮ কিলোমিটার ভিতরে ঢুকে তাঁবু গেড়ে রয়েছে, তাদের ফেরত পাঠানোর কোনও উপায় কি আদৌ রয়েছে? সেটা না থাকলে সেনা-প্রস্তুতির ফিরিস্তি দিয়ে অতি-জাতীয়তাবাদী দেখনদারির অর্থ কী?

বিরোধীদের মতে, ভারত এখন যে সামরিক প্রস্তুতি নিচ্ছে, তার লক্ষ্য মূলত, চীন যাতে নতুন করে আর জমি দখল করতে না পারে। ফিঙ্গার চার থেকে আট এবং গালওয়ান উপত্যকার মতো এলাকা যাতে হাতছাড়া না হয়। কিন্তু গালওয়ানে দখল হওয়া কয়েকশো বর্গ কিলোমিটার জমির কী হবে?

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে নীরব। তারা সেনা ও সরঞ্জাম মোতায়েন, পৌঁছনো, লাদাখের দৌলত বেগ ওল্ডি, ফুকচে, নায়োমা এয়ারস্ট্রিপ সক্রিয় করা ৬৫টি পেট্রোলিং পয়েন্টে বাড়তি সেনা মোতায়েন নিয়ে কথা বলছে। কিন্তু বেহাত হওয়া জমির পুনরুদ্ধারে কী করা হবে তা নিয়ে জবাব নেই।

কূটনৈতিক স্তরে নানাভাবে চীনকে ফিরে যাওয়ার কথা বলা হচ্ছে। তবে এত সহজে যে তারা ফিরবে না, তা ঘরোয়াভাবে স্বীকার করছেন সরকারি কর্তারাই। দু’দিন আগে চীনের সঙ্গে যুগ্মসচিব স্তরের বৈঠকের পরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রেও জানানো হয়, এই প্রক্রিয়া দীর্ঘমেয়াদি, দ্রুত মেটার নয়।

সৌজন্য: মিলিটারি ডিফেন্স ফোরাম (এমডিএফ)

৯৪ বছর বয়সে সাইকেল চালিয়ে আবারও আলোচনায় মাহাথির মুহাম্মাদ

মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মুহাম্মাদ ৯৪ বছর বয়সেও যে কর্মঠ এবং চটপটে, সম্প্রতি ৯ কিলোমিটার সাইকেল চালিয়ে তা তিনি আবারও প্রমাণ করলেন।

মাহাথিরের সাইক্লিং অ্যাডভেঞ্চার গত শনিবার তার টুইটার অ্যাকাউন্ট ‘চেডেট’ এ পোস্ট করা হয়েছিল। সেখানে দেখা গেছে, মাহাথির পুত্রজায়ার হ্রদের আশপাশে একদল লোকের সাথে সাইকেল চালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তাদের মধ্যে ছিলেন পাকাতান হরপান সরকারের অধীনে সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ডক্টর মাজলি মালিক।

এ সময় মাহাথির পরেছিলেন মালয়েশিয়ার প্রিয় অ্যানিমেটেড চরিত্র উপিন এবং ইপিন ছবি সম্বলিত একটি টি-শার্ট, যা তার তারুণ্যের বহিঃপ্রকাশ ঘটায়।

মাহাথির মুহাম্মাদ প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ২২ বছর মালয়েশিয়ার নেতৃত্বে দিয়েছেন। তার আমলেই মালয়েশিয়া জিই ১৪ তে চমকপ্রদভাবে প্রত্যাবর্তন করেছিল। তার আমলে আইসিটি এবং অনলাইন খাতে অনেকগুলো শিল্প প্রতিষ্ঠা হয়েছিল। উপিন এবং ইপিনের নির্মাতা লেস কোপাকও তার নেতৃত্বের কারণেই সফলতা অর্জন করেছে। সূত্র: পিসি ডট কম।